kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি, কোচবিহার: কোচবিহারে আবার বিজেপিতে ভাঙন। বিজেপি’র বর্ষীয়ান নেতা উৎপলকান্তি দেব-সহ তিনবারের পঞ্চায়েত সদস্য অনুপম দে সোমবার তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করলেন। তৃণমূলে যোগদান করার পর তারা বিজেপি’র বিরুদ্ধে তোলাবাজির গুরুতর অভিযোগ তুলেছেন। সোমবার কোচবিহার জেলা তৃণমূল কংগ্রেস পার্টি অফিসে জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি পার্থপ্রতিম রায়ের উপস্থিতিতে বিজেপির এই দুই নেতা তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করেন। তাদের হাতে তৃণমূলের পতাকা তুলে দেন জেলা তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি পার্থপ্রতিম রায়। এছাড়া উপস্থিত ছিলেন তৃণমূল অন্যান্য নেতৃত্ব।

জেলা তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি পার্থপ্রতিম রায় বলেন, প্রতি সপ্তাহে এভাবেই বিজেপি থেকে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান চলবে। বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু যে ভাবে ভুলভাল বকছেন, তারা যতবার কোচবিহারে এসে ভুলভাল বকবেন, ততবারই আমরা বিজেপি নেতাদের তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করাব। আজা যারা যোগদান করেছেন, তারা বিজেপি পুরনো দিনের নেতা। বর্তমান বিজেপি খোকলা হয়ে গিয়েছে। তাই আজ তারা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত ধরে উন্নয়নের কাজ করতে চান বলে তৃণমূলে যোগদান করেন।

বিজেপি থেকে তৃণমূলে যোগদান করার পর উৎপলকান্তি দেব অভিযোগ করে বলেন, দীর্ঘদিন ধরে তারা বিজেপি করেছেন। ১৯৮৩ সাল থেকে বিজেপি’র সঙ্গে যুক্ত ছিলাম। তবে আজ আর সেই বিজেপি নেই। এখন তারা তোলাবাজিতে নেমে পড়েছে। আজ যারা বিজেপিতে রয়েছেন, তারা শুধুমাত্র তোলাবাজি করছেন। এরা সাধারণ মানুষের জন্য কী উন্নয়ন বা পরিষেবা দেবেন? বিষয়গুলো রাজ্য নেতৃত্বকে জানানোর পরও কোনও কাজ হয়নি। তিনি রাজ্য নেতৃত্বের দিকে অভিযোগ তুলে বলেন, রাজ্যের নেতারা আসেন, তারা নিজেদের ভাগ নিয়ে ফিরে চলে যান। আর এখানে তৃণমূলের নামে ভুলভাল বকেন। তাদের আর কোনও কাজ নেই।

দলের নেতাদের এই দলত্যাগ নিয়ে জেলা বিজেপি সভানেত্রী মালতি রাভা রায় বলেন, অনুপম দে-কে  দল থেকে অনেক দিন আগেই বহিষ্কার করা হয়েছিল। উৎপলকান্তি দেব তার নিজের স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্যই তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করেছেন। তারা তোলাবাজির যে অভিযোগ তুলছেন, সেটা প্রমাণ করুন, তারপর কথা বলুন। নিজেই চলে গিয়েছেন, তাতেই প্রমাণ হচ্ছে তোলাবাজি করছেন কারা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here