kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি, কাঁথি: মহারাষ্ট্র থেকে এক যুবকের মৃতদেহ এল পূর্ব মেদিনীপুরে। আর সেই মৃতদেহের সৎকারে বাধা দিল এলাকাবাসী। করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে- এই সন্দেহে কোথাও মৃতদেহ সৎকার করতে দিচ্ছে না এলাকার লোকজন। যেখানেই যাচ্ছে সেখানেই প্রবল বিক্ষোভের মুখে পড়তে হচ্ছে মৃতের পরিবারের লোকজনদের। জানা গিয়েছে, পূর্ব মেদিনীপুর জেলার কাঁথি থানার অন্তর্গত ঘাঁটুয়া গ্রামের বাসিন্দা অক্ষয় রাউল কর্মসূত্রে সস্ত্রীক মহারাষ্ট্রের পুনেতে থাকতেন।

গত রবিবার বছর তেইশের ওই যুবকের অস্বাভাবিক মৃত্যু ঘটে। খবর পেয়ে তড়িঘড়ি পরিবারের লোকজন একটি গাড়ি ভাড়া করে ওই যুবকের মৃতদেহ গ্রামে নিয়ে আসেন। কিন্তু, গ্রামে ফিরতেই শুরু হয় বিপত্তি। গ্রামবাসী সেই মৃতদেহ সৎকার করতে বাধা দেয়। নিরুপায় হয়ে মৃতের পরিবারের লোকজন মৃতদেহটি সৎকারের জন্যে কাঁথি শহরের একটি শ্মশানে নিয়ে নিয়ে যান। কিন্তু, সেখানেও চরম বিক্ষোভের মুখে পড়তে হয় তাদের।

মৃতের পরিবারের লোকজনের কথায়, পারিবারিক অশান্তির জেরে ওই যুবক গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। এই সঙ্গে করোনা সংক্রামিত হওয়ার কোনও ব্যাপার নেই। কিন্তু কে শোনে কার কথা! মৃত যুবকের পরিবারের কারও কোনও কথা শুনতেই নারাজ এলাকাবাসী। সকলেরই সন্দেহ, ওই যুবক হয়তো করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছেন। এই শ্মশান সেই শ্মশান ঘুরে মৃত যুবকের দেহ সৎকার করতে পারেনি তাঁর পরিবার। সারাদিন মৃতদেহটি নিয়ে শুধুই তাদের ঘুরতে হয়েছে বিভিন্ন জায়গায়। দুপুর পর্যন্ত দেহটি সৎকার করতে পারেনি বাড়ির লোকজন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here