kolkata news

নিজস্ব প্রতিনিধি : মুখ থুবড়ে পড়েছে দল। তাই বিজেপিতে শুরু হয়েছে দোষারোপ-পাল্টা দোষারোপের পালা। শুক্রবার হেস্টিংসে আয়োজিত বৈঠকে নেতাদের দিকেই আঙুল তোলাতুলি হয়েছে বলে সূত্রের খবর। রাজ্যে নির্বাচনোত্তর হিংসায় ক্ষতিগ্রস্ত দলীয় কর্মীদের বাঁচাতে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের হস্তক্ষেপ দাবিও করেছেন রাজ্য নেতৃত্বের কেউ কেউ।

২রা মে ফল ঘোষণা হয়েছে বিধানসভা নির্বাচনের। তার পর থেকে রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় বিজেপি কর্মীরা আক্রান্ত হচ্ছেন বলে খবর। গেরুয়া শিবিরের দাবি, কোথাও কোথাও তৃণমূল করবেন বলে মুচলেকা দিয়ে তবেই ঘরে ফিরতে পেরেছেন ঘরছাড়া বিজেপি কর্মীরা। কোথাও কোথাও আবার তৃণমূলের ভয়ে ঘরছাড়ারা আশ্রয় নিয়েছেন পড়শি রাজ্য অসমে। দলের এই বিপন্ন নেতা-কর্মীদেরই পাশে থাকা প্রয়োজন।অথচ তাঁদের পাশে দাঁড়ানোর কেউ নেই বলেই অভিযোগ। হিংসায় যাঁরা সর্বস্ব হারিয়েছেন, তাঁদের পাশে দাঁড়াতে হিংসাদীর্ণ কোচবিহার এবং নন্দীগ্রামে গিয়েছেন রাজ্যপাল স্বয়ং। তবে তাতে যে কাজের কাজ কিছু হবে না, তা ভালোই বুঝতে পেরেছেন রাজ্য নেতৃত্ব।

অগত্যা দলের ক্ষতিগ্রস্ত কর্মীদের বাঁচাতে কেন্দ্রীয় হস্তক্ষেপ দাবি করছেন বিজেপি নেতৃত্বের একাংশ। এ নিয়ে ওই বৈঠকে সব চেয়ে বেশি গলা ফাটিয়েছেন তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে আসা অর্জুন সিং। দিন কয়েক আগে অর্জুনের জগদ্দলের বাড়ির সামনে ব্যাপক বোমাবাজি করে দুষ্কৃতীরা। অর্জুনের নিরাপত্তায় রয়েছে কেন্দ্রীয় বাহিনী। তার পরেও কীভাবে দুষ্কৃতীরা বোমাবাজি করল, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন এই বিজেপি নেতা। তখনও কেন্দ্র কি করছে বলে আক্ষেপ প্রকাশ করেছিলেন হতাশ অর্জুন। এদিনের বৈঠকেও তিনি ফের কেন্দ্রীয় হস্তক্ষেপের দাবিতে জোরাল সওয়াল করেন। এখন দেখার, রাজ্যে হিংসা থামাতে কেন্দ্র হস্তক্ষেপ করে কিনা!       

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here