kolkata bengali news

ডেস্ক: কংগ্রেসের দুর্ভেদ্য গড় আমেথি লোকসভা কেন্দ্রের পাশাপাশি কেরলের ওয়েনাড় থেকেও নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। কংগ্রেসের এই ঘোষণার তীব্র বিরোধিতা করেছে বামেরা। বিরোধিতা করেছে এনসিপি সহ অন্যান্য সহযোগী দলও। এনিয়ে কেরলের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন বলেছেন, একজন বামপন্থী প্রার্থীর বিরুদ্ধে রাহুল গান্ধীর প্রতিদ্বন্দ্বিতা সঙ্কেত দিচ্ছে যে, ধর্মনিরপেক্ষ জোট ঐক্যবদ্ধ নয়। পাশাপাশি, বিজেপি দাবি করেছে ভয় পেয়েছেন কংগ্রেস সভাপতি। যার ফলে আমেথির পাশাপাশি ওয়েনাড়েও প্রার্থী হচ্ছেন। অন্যদিকে, প্রশ্ন উঠছে এ সিদ্ধান্ত নিল কেন কংগ্রেস?

উত্তরপ্রদেশের আমেথি কেন্দ্রের সঙ্গে কংগ্রেস তথা গান্ধী পরিবারের সম্পর্ক দীর্ঘদিনের। ১৯৬৭ সালে গঠিত হয় আমেথি লোকসভা কেন্দ্র। সেই থেকে মাত্র দুবার স্বল্প সময়ের জন্য বিরোধীদের দখলে যায় এই লোকসভা কেন্দ্র। গান্ধী পরিবারের চার জন সঞ্জয় গান্ধী, রাজীব গান্ধী, সোনিয়া গান্ধী এবং রাহুল গান্ধী এই আমেথি থেকে নির্বাচিত হন। ২০০৪ থেকে এই কেন্দ্র রাহুল গান্ধীর দখলেই রয়েছে। কিন্তু ২০১৪ লোকসভা ভোটে তাঁর জয়ের ব্যবধান অনেক কমে যায়। ২০০৯ লোকসভা ভোটে যেখানে রাহুলের জয়ের ব্যবধান ছিল ৩, ৭০, ১৯৫ ভোট (প্রাপ্ত ভোট ৭১.৭৮ শতাংশ), সেখানে ২০১৪ সালে ব্যবধান হয় মাত্র ১, ০৭, ৯০৩ ভোটের (প্রাপ্ত ভোট ৪৬.৭১ শতাংশ)। কংগ্রেসের ২৫.০৭ শতাংশ ভোট কমে যায়। অন্যদিকে, ২০০৯-এর ভোটে বিজেপির প্রাপ্ত ভোট ৫.৮১ শতাংশ বেড়ে হয় ৩৪.৩৮ শতাংশ। গৈরিক শিবিরের ভোট ২৮.৫৭ শতাংশ বেড়ে যায়।

এই পরিস্থিতিতে কংগ্রেস নেতৃত্বের বিশ্বাস, ২০১৮ সালে বন্যায় বিধ্বস্ত ওয়েনাড় লোকসভা কেন্দ্রে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলে অনায়াসে বিজয়ী হবেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। ২০০৮-এর পুনর্বিন্যাসের পর সাতটি বিধানসভা কেন্দ্রকে নিয়ে গঠিত হয় ওয়েনাড় লোকসভা কেন্দ্র। ২০০৯ ও ২০১৪ লোকসভা নির্বাচনে এই কেন্দ্রে কংগ্রেসের এমআই শানাভাস জয়ী হন। ২০০৯ লোকসভা ভোটে তাঁর প্রাপ্ত ভোট ৪, ১০, ৭০৩ (৪৯.৮৬ শতাংশ)। তিনি সিপিআইয়ের এম রহমুত্তালামকে পরাজিত করেন। সিপিআই প্রার্থীর প্রাপ্ত ভোট ২,৫৭, ২৬৪ ভোট (৩১.২৩ শতাংশ)। আবার ২০১৪ লোকসভা ভোটে শানাভাসের প্রাপ্ত ভোট ছিল ৩,৭৭,০৩৫ (৩০.১৮ শতাংশ)। অন্যদিকে, সিপিআই প্রার্থী সত্যম মোকারি পান ৩,৫৬,১৬৫ ভোট (২৮.৫১ শতাংশ)। যদিও এই নির্বাচনে বিজেপি তৃতীয় স্থানে উঠে আসে। বিজেপির পিআর রাসমিলনাথ পান ৮০,৭৫২ ভোট (৬.৪৬ শতাংশ)। বিজেপির ৩১, ৬৮৭ ভোট বেড়ে যায়। এই লোকসভা কেন্দ্রে মোট ভোটারের বড় অংশ মুসলিম। কংগ্রেসের বিশ্বাস, রাহুল গান্ধীর মতো তারকা প্রার্থী এখানে প্রার্থী হলে এই কেন্দ্র কংগ্রেসের দখলেই থাকবে।

দলের সভাপতির জন্য আমেথির তুলনায় ওয়েনাড়কেই বেশি নিরাপদ বলে মনে করছে কংগ্রেস। কারণ, উত্তরপ্রদেশে ২০১৭ বিধানসভা নির্বাচনে আমেথি লোকসভার পাঁচটি বিধানসভা কেন্দ্রের চারটিই দখল করে বিজেপি। তাছাড়া আমেথিতে প্রচারে ঝড় তুলেছেন বিজেপি প্রার্থী স্মৃতি ইরানি। সভা-সমাবেশ, মিছিলে তোলপাড় করে তুলেছে গৈরিক শিবির। এখানেই ভয় কংগ্রেস নেতৃত্বের। যার ফলে কংগ্রেস সভাপতির জয় নিশ্চত করতে ওয়েনাড়কেই নিরাপদ মনে করছেন তাঁরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here