মহানগর ওয়েবডেস্ক: আগামী রবিবারের পরেও লকডাউন চলবে কিনা কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে এখনও পর্যন্ত তার কোনও স্পষ্ট নির্দেশ মেলেনি বলে রাজ্য সরকার জানিয়েছে। মুখ্যসচিব রাজীব সিনহা আজ নবান্নে সাংবাদিকদের বলেন, বর্তমান পরিস্থিতি পর্যালোচনায় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র সচিব অজয় ভাল্লার সঙ্গে আজ দীর্ঘক্ষণ ভিডিও কনফারেন্স হলেও তিন তারিখের পরে ও লকডাউন চলবে কিনা তা নিয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র সচিব কোনও স্পষ্ট কথা বলেননি। সব রাজ্য থেকে রিপোর্ট আসার পরেই তা খতিয়ে দেখে কেন্দ্রের তরফে এই বিষয়ে নির্দেশিকা জারি করা হবে বলে কেন্দ্রীয় সচিব জানিয়েছেন।

এদিকে লকডাউন নিয়ে রাজ্য সরকারের গঠিত তিনটি টাস্কফোর্সের তরফে আজ রিপোর্ট জমা পড়েছে বলে মুখ্য সচিব জানান। আগামীকাল অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্রর পৌরহিত্যে করোনা নিয়ে গঠিত উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন কমিটির বৈঠকে রিপোর্ট নিয়ে আলোচনার পরে রাজ্যে লকডাউনের ভবিষ্যৎ নিয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে মুখ্য সচিব জানিয়েছেন। কেন্দ্রের নির্দেশে আজ পেট্রাপোল আন্তর্জাতিক সীমান্ত খুলে দেওয়া প্রসঙ্গে মুখ্য সচিব বলেন, কেন্দ্রীয় নির্দেশ মেনে এই বিষয়টি নিয়ন্ত্রণ করার জন্য রাজ্য সরকার আরও কঠোর হতে পারে। কিন্তু প্রতিবেশী রাষ্ট্রের সঙ্গে সম্পর্ক ভালো হওয়ার কারণে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

একই সঙ্গে এদিন নভেল করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় চিকিৎসক, নার্স সহ যে সব ব্যক্তি সামনে থেকে কাজ করছেন রাজ্য সরকার তাদের জীবন সুরক্ষায় যে বিশেষ বীমা প্রকল্পের কথা ঘোষণা করেছিল তার মেয়াদ বৃদ্ধি করা হচ্ছে বলে জানানো হয়। আজ নবান্ন থেকে সরকারিভাবে এই তথ্য জানানো হয়েছে। করোনায় আক্রান্ত বা মৃত ব্যক্তিরা আগামী ৩১ শে মে পর্যন্ত এই বীমা প্রকল্পের সুবিধা পাবেন বলে জানানো হয়েছে। ১০ লক্ষ ব্যক্তিকে এই প্রকল্পের আওতায় আনা হয়েছে।

উল্লেখ্য করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হলে এই প্রকল্পে মৃতের পরিবারকে এককালীন ১০ লক্ষ টাকা এবং আক্রান্তদের চিকিৎসার খরচ দেওয়া হবে বলে আগেই জানানো হয়েছে। আগে এই বীমা প্রকল্পে ১৪মে পর্যন্ত সুবিধা পাওয়া যাবে বলে জানানো হয়েছিল। এদিকে এই প্রকল্পে এখনও পর্যন্ত রাজ্যের ২১ জন করোনা আক্রান্তের চিকিৎসার জন্য তাদের প্রত্যেককে ১ লক্ষ টাকা করে এবং করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত দুই জন চিকিৎসকের পরিবারের হাতে ১০ লক্ষ টাকা করে ক্ষতিপূরণ তুলে দেওয়া হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here