cobra

ডেস্ক: সম্প্রতি উপগ্রহ বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র এ-স্যাট উৎক্ষেপণ করে গোটা বিশ্বে বিরল কৃতিত্ব অর্জন করেছে ভারত। এরই মাঝে গোয়েন্দা সংস্থা সূত্রে খবর, ওই দিন ভারতের উপর নজরদারি চালাতে বঙ্গোপসাগরের উপর চক্কর কাটতে দেখা যায় মার্কিন বিমান কোবরা বলকে। যদিও ভারতের উপর নজরদারি চালাতে চালানোর কথা পুরোপুরি অস্বীকার করেছে পেন্টাগন।

এই খবর প্রকাশ্যে আসার পর মার্কিন প্রতিরক্ষা দফতরের তরফে সংবাদমাধ্যমকে জানানো হয়, ‘ভারতের উপর আমেরিকা কোনও রকম নজরদারি চালায়নি। প্রতিরক্ষা হোক কিংবা অর্থনীতি ভারতের সঙ্গে আমেরিকার সম্পর্ক যথেষ্ট মজবুত। সেই সম্পর্ক আরও দৃঢ় করে তোলাই আমাদের লক্ষ্য।’ তবে মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রক যাই জানাক না কেন, এয়ারক্র্যাফট স্পটস জানাচ্ছে অন্য কথা। বিভিন্ন সেনাবাহিনীর গতিবিধির উপর নজরদারী চালায় এই এয়ারক্র্যাফট স্পটস। তাঁদের দাবি, মার্কিন বিমান সেদিন নজরদারি চালানোর জন্যই গিয়েছিল।

অন্যদিকে, হাভার্ড স্মিথসোনিয়ান সেন্টার ফর অ্যাস্ট্রোফিজিক্স-এর জ্যোতির্বিজ্ঞানী জোনাথন ম্যাকডোয়েল এয়ারক্রাফ্ট স্পটস-এর রিপোর্টের ভিত্তিতে বলেন, আমেরিকা বিষয়টিকে সহজভাবে দেখানোর চেষ্টা করছে ঠিকই কিন্তু, প্রত্যেক দেশই তাঁর বন্দু ও শত্রু দেশের উপর নজরদারি চালায়। ফলে আমেরিকা যে নজরদারি চালায়নি এটা বিশ্বাস করা বেশ কঠিন। প্রসঙ্গত গত ২৭ তারিখ বুধবার বিশ্বের চতুর্থ দেশ হিসাবে উপগ্রহ ধ্বংসকারী ক্ষেপণাস্ত্র এ-স্যাটকে মহাকাশে পাঠায় ভারত। এরপর ২৮ মার্চ মার্কিন গুপ্তচর বিমান ‘কোবরা বল’কে চক্কর কাটতে দেখা যায় বঙ্গোপসাগরে। এয়ারক্রাফ্ট স্পটসের তরফ থেকে তখন দাবি করা হয় এ-স্যাটের কার্যকারিতা কী তা দেখতেই সেখানে এসেছিল তারা। পরে অবশ্য পেন্টাগণের তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়, ভারত যে এই কাজ করতে চলেছে তা আগে থেকেই জানত তারা। ফলে নজরদারি চালানোর কোনও প্রশ্নই ওঠে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here