নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: খাদ্যের জন্য অনেকটা মানুষের ওপরেই নির্ভর করে তারা। লকডাউনের জেরে আজ পথঘাট মানুষ শূন্য। বেহাল দশা পথ পশুদের। এই সমস্ত অভুক্ত পশুদের কথা বারবারই ভাবিয়ে তুলেছে পশুপ্রেমী মন্ত্রীকে। তাই কখনও বা কুকুরদের কাছে খাবার নিয়ে পৌঁছে গেছেন, কখনও বা ঘোড়াদের খাবারের ব্যবস্থা করেছেন বন মন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। এবার আরও একধাপ এগিয়ে নয়া সিদ্ধান্ত নিলেন মন্ত্রী। এবার আর শুধু মানুষের জন্য নয়, নিয়মিত ক্রাণ বিলি হবে হনুমানদের জন্যও। সোমবার এমনটাই জানালেন বন মন্ত্রী।

ডোমজুড় বিধানসভার অন্তর্গত পাকুরিয়া, সেখানে ত্রাণ সামগ্রী বিলি করা হয় রোজ। ওই এলাকার অভুক্ত মানুষদের কাছে চাল ডাল আলু তুলে দেওয়া হয় বিনামূল্যে। এই সমগ্র কাজটি পরিচালনা করছেন মন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। একইভাবে আজকেও কিছু খাবারের প্যাকেট তৈরি করা হচ্ছিল। সেই সময় ওই স্থানে চলে আসে হনুমানের দল। তাদেরকে নিরাশ করেননি মন্ত্রী। এদিন হনুমানদের হাতে বিস্কুট-আলু সহ কিছু খাদ্য সামগ্রী তুলে দেন তিনি। এমনকি এরপর থেকে প্রত্যেক দিনই তাদের জন্য খাবার ব্যবস্থা করা হবে বলে জানান মন্ত্রী।

রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, আজ হঠাৎ করে কিছু হনুমানের দল চলে এসেছিল। তাই বেশি কিছু ব্যবস্থা করা যায়নি। তবে এবার থেকে রোজ হনুমানদের খাবারের ব্যবস্থা করা হবে। প্রত্যেকদিন দু কাঁদি কলা, এক কেজি বিস্কুট, চার থেকে পাঁচ কেজি আলুর ব্যবস্থা রাখা হবে হনুমানদের খাবারের জন্য। পরে যদি তাদের সংখ্যা বৃদ্ধি পায়, তাহলে সেই অনুযায়ী খাবার বাড়ানো হবে বলে জানান তিনি।

প্রসঙ্গত, কলকাতায় লকডাউনের শুরু থেকেই শহরের বিভিন্ন এলাকায় পথাও কুকুরদের কাছে খাবার পৌঁছে দিয়েছেন রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। কিছুদিন আগেও কলকাতা ও ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালের সামনে থাকা অভুক্ত ঘোড়াদের খাবারী ব্যবস্থা করেন মন্ত্রী। এছাড়াও এদিন কলকাতার সর্বত্র ছড়িয়ে থাকা অভুক্ত ঘোড়াদের ও খাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়। মোট ১৫০ টি ঘোড়ার খাবার ব্যবস্থা করা হয় ওইদিন। এর সঙ্গেই ঘোড়াগুলির স্বাস্থ্য পরীক্ষার ও ব্যবস্থা করা হয় বনমন্ত্রীর উদ্যোগে।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here