covid news

মহানগর ডেস্ক: রাজ্যে করোনা সংক্রমণ গত ২৪ ঘণ্টায় সবথেকে বেশি৷ সংখ্যার নিরিখে যা দু-হাজার ছাপিয়ে গেল৷ দাপটে শীর্ষাসন দখল করেছে রাজধানী কলকাতা শহর৷ স্বভাবতই রাজ্যবাসী ফের নতুন করে আশঙ্কা, উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠায় ভুগতে শুরু করেছেন৷ দীর্ঘ লকডাউনে রাজ্য তথা গোটা দেশে কয়েক কোটি মানুষ চরম আর্থিক সংকটে পড়েন৷ সাধারণ মানুষের একটা বড় অংশের আর্থ-সামাজিক কাঠামো একেবারে ভেঙে পড়েছে৷ অগণিত মানুষ রুটি-রুজি হারিয়ে পেটের জ্বালায় অনেক নীচে নেমে, অনেক কম বেতনে, অনেক ছোটখাট কাজ করতে বাধ্য হচ্ছে৷

এদিকে পরিসংখ্যান বলছে, গত একদিনে রাজ্যে ৭জন করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছে৷ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২ হাজার ৫৮জন৷ আবার গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৭২২জন৷ সবথেকে বেশি দাপট দেখা যাচ্ছে কলকাতা এবং তারপর উত্তর ২৪ পরগনায়৷ কলকাতায় মারা গিয়েছেন ৩জন৷ আজ পর্যন্ত পশ্চিমবঙ্গে করোনাক্রান্তে মৃতের সংখ্যা মোট ১০ হাজার ৩৩৫জন৷  আক্রান্তের সংখ্যা ৫ লক্ষ ৯৭ হাজার ৬৩৪৷

অন্যদিকে, গোটা দেশের পরিসংখ্যান বলছে, গত ২৪ ঘণ্টায় লাখ পেরিয়ে গেল দৈনিক সংক্রমণের সংখ্যা৷ একদিনেই মারা গেলেন ৪৭৮জন৷ আগেরদিন এই সংখ্যা ছিল ৫১৩৷ শেষ ২৪ ঘণ্টায় সংক্রমণ একলাফে বেড়েছে প্রায় ১০ হাজার৷ সোম-মঙ্গলবার  অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লক্ষ ৩ হাজার ৫৫৮জন৷ দেশে এই প্রথম একদিনে সংক্রমণের সংখ্যা লাখ পেরল৷ এর আগে সর্বোচ্চ আক্রান্ত ছিল ২০২০ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর, সেদিন আক্রান্ত হয়েছিল ৯৭ হাজার ৮৯৪জন৷ পঞ্জাব, মহারাষ্ট্র এবং ছত্তীশগড়ের পরিস্থিতি খুবই উদ্বেগজনক৷

বিশেষজ্ঞদের অনুমান, করোনা পরিস্থিতি ফের যেভাবে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে, তাতে খুব সম্ভবত ভোট পর্ব মিটলেই এ রাজ্যে ফের লকডাউন হতে পারে৷ পাশাপাশি অসম, কেরল, তামিলনাডু এবং পুদুচেরির মতো রাজ্যগুলোতেও ভোটের পর লকডাউন জারি হতে পারে৷ দিল্লিতে আজ থেকেই নাইট কারফিউ জারি হচ্ছে৷ গোটা দেশে এ পর্যন্ত ১ লক্ষ ৬৫ হাজার ১০২ জনের মৃত্যু হয়েছে৷  আক্রান্তের সংখ্যা ১ কোটি ২৫ লক্ষ ৮৯ হাজার ৬৭৷ করোনাকে জয় করে সুস্থ হয়েছেন ১ কোটি ১৬ লক্ষ ৮২ হাজার ১৩৬জন৷ বিশেষজ্ঞদের মতে, করোনা পরিস্থিতি খুবই উদ্বেগজনক আকার নিচ্ছে৷ এর জন্য অনেকাংশেই দায়ী রাজনৈতিক দলগুলোর নির্বাচনী প্রচার৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here