ডেস্ক: পঞ্চায়েতের ভোটবাদ্যি খুব শীঘ্রই বেজে উঠতে চলেছে রাজ্যে। সূত্রে প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী, রাজ্য নির্বাচন কমিশন নবান্নে চিঠি পাঠিয়ে জানিয়েছে তারা পঞ্চায়েতের নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত। কমিশন সেই চিঠিতে তিন দফায় ভোট করার কথা জানিয়েছে। নবান্ন সূত্রে প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী কমিশন ৩ মে উত্তরবঙ্গের ছয় জেলা যথাক্রমে কোচবিহার, আলিপুরদুয়ার, জলপাইগুড়ি, উত্তর ও দক্ষিণ দিনাজপুর এবং মালদায় ভোট করাতে চায়। কমিশনের প্রস্তাব অনুযায়ী দক্ষিণবঙ্গে ভোট হতে পারে দুই দফায়। ৭ মে ও ১০ মে। ৭ তারিখে মুর্শিদাবাদ, নদিয়া, উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগণা, বীরভূম এবং পূর্ব বর্ধমান জেলায় ভোট গ্রহণ করা হতে পারে। বাকি জেলাগুলিতে ভোট হবে ১০ মে। রাজ্য সরকার নির্বাচন কমিশনের এই প্রস্তাব মেনে নিলে গণনা হতে পারে ১৩ মে। তবে নবান্ন সূত্রে এটাও জানা গিয়েছে, রাজ্য সরকার এখনও একদিনেই পঞ্চায়েত নির্বাচন চাইছে। তবে এ বিষয়ে রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নেবেন বলেই জানা গিয়েছে।

উল্লেখ্য, রাজ্য নির্বাচন কমিশন রাজ্য সরকারের মতামত মেনে নিতে বাধ্য নয়। ২০১৩ সালে পঞ্চায়েত ভোট নিয়ে রাজ্য সরকার ও নির্বাচন কমিশনের দ্বন্দ্ব গড়িয়েছিল আদালত অবধি। এবারে অবশ্য কমিশনকে ততটা রনংদেহী মূর্তিতে দেখা যাচ্ছে না। রাজ্য সরকারের আধিকারিকদের অভিমত ভোট কয় দফায় হবে সেটা নির্বাচন কমিশনই ঠিক করবে। তবে রাজ্য সরকার তার নিজস্ব অভিমত জানাবে। তারা এটাও জানিয়েছেন, এক দফা না তিন দফা সেটা প্রশ্ন নয়। কমিশন যে তারিখ জানিয়েছে তার মধ্যে থেকেই সম্ভাব্য দিনক্ষণ বেছে নেওয়া হবে। উল্লেখ্য, মে মাসের ১৫ তারিখ আমাবস্যা। তারপর আকাশে যেদিন প্রথম চাঁদ দেখা দেবে তারপরের দিন থেকেই শুরু হয়ে যাবে সংখ্যালঘু সমাজের ঈদের রোজা। সেই হিসাবে ১৭ বা ১৮ মে থেকে রোজা শুরু হতে পারে। মুখ্যমন্ত্রী চাইছেন রোজা শুরুর আগেই ফলাফল ঘোষিত হয়ে যাক। নবান্ন সূত্রে জানা গিয়েছে, চলতি মাসে মুখ্যমন্ত্রীর জেলা সফর শেষ হলেই ভোটের দিনক্ষণ ঘোষণা করে দেওয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here