Home Featured কী এই পেগেসিস সফটওয়্যার! যা দিয়ে আপনার ফোনেও চালানো যেতে পারে নজরদারি

কী এই পেগেসিস সফটওয়্যার! যা দিয়ে আপনার ফোনেও চালানো যেতে পারে নজরদারি

0
কী এই পেগেসিস সফটওয়্যার! যা দিয়ে আপনার ফোনেও  চালানো যেতে পারে নজরদারি
Parul

মহানগর ডেস্ক: ইজরায়েলি কোম্পানি NSO -এর তৈরি সফটওয়্যার পেগেসিস সম্প্রতি আবারো শিরোনামে উঠে এসেছে। একটি বেসরকারি সংবাদ পোর্টালের একটি রিপোর্টে অভিযোগ করা হয়েছে বেশ কিছু সাংবাদিক, রাজনীতিবিদ সমেত অনেক ব্যক্তিদের ফোনই হ্যাক করে তাদের সমস্ত গোপন তথ্য ‘চুরি’ করা হয়েছিল এই সফটওয়্যারের মাধ্যমে। সফটওয়্যার সৃষ্টিকারী কোম্পানির দাবি তারা কোনো দেশের সরকার ছাড়া অন্য কোনো বেসরকারি সংস্থা কিংবা ব্যক্তিকে এইসব তথ্য বিক্রি করেনি। তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রক যদিও কোনোরকম নজরদারি বা ব্যক্তিগত তথ্য চুরির ঘটনা অস্বীকার করেছে।

কিন্তু কি এই পেগেসিস সফটওয়্যার? কেনই বা বাকি পাঁচটা হ্যাকিং মাধ্যমের থেকে আলাদা এই সফটওয়্যারটি? কেনই বা ব্যক্তিগত গোপনীয়তা ও গণতন্ত্রের পক্ষে সওয়ালকারীরা একে এতটা ভয় পান! আসুন দেখে নেওয়া যাক এর কিছু বৈশিষ্ট্য এবং কিভাবে এটি যেকোনো সরকারের পক্ষে গণতন্ত্রকে দমন করার অস্ত্র হয়ে উঠতে পারে।

২০১৬ সালে প্রথম এই পেগেসিস নামের সফটওয়্যারটি সংবাদ শিরোনামে আসে যখন একটি ম্যাসেজের মাধ্যমে হ্যাকিং লিঙ্ক পাঠিয়ে আরব আমিরশাহীর একজন মানবাধিকার কর্মীর I-Phone হ্যাক করার চেষ্টা হয়। ওই কর্মী ম্যাসেজটিকে সরাসরি সাইবার ল্যাবে টেস্টিং এ পাঠালে ওই লিঙ্কটি টেস্ট করে NSO কোম্পানির জড়িত থাকার প্রমান মেলে এবং হ্যাকিং এর সফটওয়্যারটি ‘আবিষ্কৃত’ হয়। জেনে নেওয়া যাক এর বিশেষ গুণাগুণ-
– মার্কেটে উপলব্ধ সকল হ্যাকিং সফটওয়্যারগুলির মধ্যে পেগেসিস সবচেয়ে ‘সফিস্টিকেটেড’ ও নিখুঁত।
– এটি ‘এন্ড্রয়েড’ সিস্টেম ছাড়াও ‘উইন্ডোজ’,iOS এবং সকল প্রকার অ্যাপেলের ফোনে উপস্থিত থেকে হোয়াটসঅ্যাপ থেকে সকল প্রকার অ্যাপ ও সফটওয়্যারে নজরদারি করতে পারে এবং সেখান থেকে তথ্য চুরি করে নিজের সোর্সের কাছে পাঠাতে পারে।
– ইজরায়েলি কোম্পানি NSO ২০১৯ থেকেই এই সফটওয়্যারটি কেবল কোনো দেশের গোয়েন্দা বিভাগকেই লাইসেন্স দেওয়ায় সীমাবদ্ধ করেছে।
– পেগেসিস একবার ফোনে কোনো প্রবেশ করলে সেই ফোনের সকলপ্রকার তথ্য আদানপ্রদান ও কমিউনিকেশন(ই-মেইল, I-massage, হোয়াটসঅ্যাপ, ফেসবুক, স্কাইপ ইত্যাদি) বের করে নিতে সক্ষম। অর্থাৎ আপনার ফোনের কোনো কন্টেন্টই আর সুরক্ষিত নয়।
– এই সফটওয়্যার একবার আপনার ফোনে প্রবেশ করলে আপনার স্ক্রিন সেভ করতে পারে, এমনকি আপনার স্ক্রিনের স্ক্রিনশট নিয়ে নিজের সোর্সকে পাঠাতেও পারে। এবং ফোনের মালিক কিছুই টের পাবেন না।
– শুধু তাই নয় আপনার ফোনে ইনস্টলড বিভিন্ন অ্যাপের সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ নিয়ে আপনার ফোন থেকে বিভিন্ন এক্টিভিটি করতে পারে আপনাকে কিছু না জানিয়েই।
– এমনকি হোয়াটসঅ্যাপের ‘এন্ড টু এন্ড এনক্রিপশন’ কেও ফাঁকি দিতে সক্ষম পেগেসিস। কারণ এই এনক্রিপশন শুধুই তথ্যের আদানপ্রদানের সময় কাজে আসে, আপনার ডিভাইসের মধ্যে নয়।
– পেগেসিসকে আপনার ফোনে কোনো ইনফেক্টেড লিঙ্ক, মেসেজ, সোশ্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং এর মাধ্যমে ঢুকিয়ে দেওয়া যেতে পারে। বিপজ্জনক ভাবে মিসকলের মাধ্যমেও এই সফটওয়্যার আপনার ফোনে ঢোকানো সম্ভব।
– সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় যা পেগেসিসকে ভয়ঙ্কর করে তা হলো নিজের উপস্থিতি এ কিছুতেই টের পেতে দেয়না। এমনকি ফরেনসিক পরীক্ষাও নির্দ্বিধায় এড়িয়ে যেতে পারে। খুব সূক্ষ্ম ও ডিটেইলড পরীক্ষা ছাড়া একে ধরা অসম্ভব।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here