kolkata news
Parul

নিজস্ব প্রতিনিধি অন্ধকারের বুক চিরে সাদা থান পরে দাঁড়িয়ে কে? গাড়ির হেডলাইট জ্বাললেই উধাও হয়ে যাচ্ছে ছায়ামূর্তি। ভয়ে জলপাইগুড়ির লাটাগুড়ির রাস্তায় গাড়ি চালানো বন্ধ করে দিয়েছিলেন চালকরা। স্বাভাবিকভাবেই পর্যটকের খরা দেখা দিয়েছিল গরুমারা সহ উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন পর্যটনক্ষেত্রে। সম্প্রতি ফাঁস হল সেই রহস্যের পর্দা।  

ads

লাটাগুড়ি থেকে মালবাজারগামী ৩১ নম্বর জাতীয় সড়ক। অন্ধকার গাঢ় হলেই সেখানে শুরু হচ্ছিল ভূতের নাচন। সাদা থান পরা ওই মহিলার চোখ দুটি জ্বলজ্বল করত। কঙ্কালসার চেহারা। আলুথালু বেশ। গাড়ি আসতে দেখলেই হাত-পা নাড়তে থাকে ওই ছায়ামূর্তি। যেন কিছু বলতে চায়। আঁধার রাতে নির্জন রাস্তায় এ দৃশ্য দেখে চমকে উঠতেন গাড়ি চালকরা। তাই পর্যটক নিয়ে ওই রাস্তায় যেতে চাইছেন না তাঁরা।

ভূতের খবর পেয়ে যখন নির্জন ওই রাস্তায় গাড়ি নিয়ে যেতে অস্বীকার করছেন চালকরা, তখনই রহস্যভেদ করলেন এক গাড়িচালক। গাড়ি থামিয়ে তিনি ক্রমশঃ এগোলেন ভূতের দিকে। বিপদ বুঝে ভূতও ক্রমেই পিছু হঠতে লাগল। শেষমেশ ছুটে গিয়ে ওই গাড়ি চালক জাপটে ধরলেন ভূতকে। দেখা গেল, ছায়ামূর্তি আসলে এক নারী। ভূত ধরা পড়েছে শুনে দলে দলে লোকজন চলে আসেন। খবর দেওয়া হয় পুলিশে। মেটেলি থানার পুলিশ গিয়ে উদ্ধার করে ওই মহিলাকে। পুলিশ সূত্রে খবর, ওই মহিলা মানসিক ভারসাম্যহীন। তাঁকে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে চিকিৎসার জন্য। ওই মহিলাকে দিয়ে কোনও চক্র ছিনতাই করাতো কি না, তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ।          

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here