kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি: আই কোথায় যাবে, বিজেপি নেতারা রাতে আগেভাগে কী করে বলছেন? আর তার থেকেই মনে হচ্ছে কোথায় যেন কে যেন কার সঙ্গে  হাত মিলিয়ে ষড়যন্ত্র করছে। সিবিআই তদন্তকারীদের প্রভাবিত করা হচ্ছে প্রতিটা মুহূর্তে। অথচ সারদা-নারদা মামলায় সিবিআই কোনও পদক্ষেপ করছে না। যখন কোনও তদন্ত রাজনৈতিক ভাবে প্রভাবিত হয়,  তখন কিছু তদন্ত গতি পায়। ধামাচাপা পড়ে। অথবা তদন্ত থেমে যায়। সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে এমনই অভিযোগ করলেন তৃণমূল নেতা কুণাল ঘোষ।

উল্লেখ্য, কুলতলির সভা থেকে শুভেন্দু অধিকারী-সহ অন্যান্য বিজেপি নেতৃত্ব অভিযোগ করেন, ‘দুয়ারে সিবিআই পৌঁছে গিয়েছে’। তারপর সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে এদিন কুণাল ঘোষ একথা বলেন। সিবিআই প্রসঙ্গে কুণাল ঘোষ আরও বলেন, ‘সিবিআই কেন শুভেন্দু অধিকারীকে গ্রেফতার করছে না। কারণ সিবিআই-এর বকলেস পরে দলবদল করেছে শুভেন্দু। তাদেরকে বিস্কুট দেখিয়ে ঘেউ ঘেউ করছে আর বলছে খেলা হবে।

ক্যানিংয়ের সভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে কুণাল আরও বলেন, বিজেপি সমস্ত পচা নেতাদেরকে নিয়ে রাজনীতি করছে। এবার ভোটে আমরা প্রমাণ করে দেব এই পচা নেতাদের কোনও মূল্য নেই। আর পেছনে তাদের নেওয়ার জন্য অমিত শাহ বিমান পাঠিয়ে বসে থাকেন। বিজেপি সরকারের জনবিরোধী নীতি প্রত্যাখ্যান করছে সারা ভারতের মানুষ। আর রাজ্যের জনমুখী নীতি চলছে। তার জন্য বিজেপি সিবিআইয়ের ভয় দেখাচ্ছে। রাজ্যে ২২৫ আসন পাবে তৃণমূল কংগ্রেস। আর সরকার গড়বে। বুথে যেন বিজেপির এজেন্ট না বসতে পারে সেদিকেও নজর রাখতে হবে। আর আমাদের দলের যদি কোন ভুলত্রুটি থাকে, কোনও নেতার ওপরে যদি অসন্তুষ্ট হয়ে থাকেন, তা হলে ক্ষমা চেয়ে নিতে হবে। বিজেপি ৫০ টি আসন পাবে না।

দলবদল করা নেতাদের প্রসঙ্গে তিনি এদিন বলেন, যারা দলবদল করে অন্য দলে গিয়েছেন, তাদের জামানত বাজেয়াপ্ত হবে। নাম ধরে ধরে তিনি বলেন শুভেন্দু অধিকারী, রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় এমনকী বৈশাখী ডালমিয়ার জামানত বাজেয়াপ্ত হয়ে যাবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here