bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী শহরে এসেছেন। ফলে বিকেল থেকে বড্ড ব্যস্ত রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিকেল ৪ টে নাগাদ একবার রাজভবনে গিয়ে মোদীর সঙ্গে বৈঠক। সেখান থেকে আবার ধর্মতলায় সিএএ বিরোধী ধর্না। ঘণ্টা খানেক সেখানে কাটিয়ে ফের মিলিনিয়ম পার্কে মোদীর সঙ্গে এক ফ্রেমে মমতা। সিএএ বিরোধী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এহেন ভূমিকায় রীতিমতো সরব রাজ্যের বাম ছাত্র সংগঠন। তারই জের দেখা গেল রাতের ডেরিনা ক্রসিংয়ে। মোদীর সঙ্গে মিলিনিয়াম পার্ক থেকে ধর্না মঞ্চে মমতা ফিরতেই পুলিশের ব্যারিকেড ভেঙে তাঁকে ঘিরে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করল রাজ্যের বাম সংগঠন। উঠল প্রশ্ন ‘কেন আপনি নরেন্দ্র মোদীকে এই রাজ্যে অ্যালাও করলেন।’ সবমিলিয়ে উত্তাল হয়ে উঠল পরিস্থিতি।

মোদীর সঙ্গে সাক্ষাৎ সেরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সিএএ মঞ্চে আসতেই পুলিশের ব্যারিকেড ভেঙে মমতার মঞ্চের সামনে চলে আসেন বাম ছাত্ররা। স্লোগান ওঠে ‘সেটিং হল তলে তলে দিদি তুমি কার দলে’। মমতার দিকে আঙুল তুলে এক ছাত্র প্রশ্ন ছোড়েন ‘তাহলে কি পুরোটাই সেটিং?’ পাল্টা ছাত্রদের শান্ত হতে বলে মমতা বলেন, ‘মাথা গরম করবেন না আপনারা শান্ত হন। আপনাদের আন্দোলন আমাদেরও আন্দোলন।’ তবে পরিস্থিতি শান্ত হয়নি পাল্টা স্লোগান ওঠে, ‘মোদীর এজেন্ট মমতা, জেনে গেছে জনতা।’ পরিস্থিতি বেগতিক দেখে এবার সরাসরি মমতা বলেন, ‘আমাদের মঞ্চে যদি হামলা হয়, তা হলে ভুলে যেও না আমাদেরও ছাত্র সংগঠন রয়েছে। ওরা এখানেই রয়েছে।’ সব মিলিয়ে জটিল হয়ে ওঠে পরিস্থিতি। এরপর অবশ্য ছাত্রদের সঙ্গে বাগবিতন্ডতা ছেড়ে সিএএ আইনের বিরুদ্ধে স্লোগান তোলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

তার আগে অবশ্য ছাত্রদের ভুল ভাঙিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, তিনি প্রধানমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ করে ডেকে আনেননি। উনি নিজেই এসেছেন। প্রধানমন্ত্রী কলকাতা সফরে এলে সৌজন্যের খাতিরে মুখ্যমন্ত্রীকে যেতেই হয়। অবশ্য এদিন মোদীর সঙ্গে মমতার সাক্ষাৎকে ঘিরে উত্তাল ছিল পরিস্থিতি। এদিনই সিপিএম নেতা মহম্মদ সেলিম মমতা মোদীর বৈঠকের পর রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে তোপ দেগে বলেছিলেন, ‘তা হলে কি সেটিং হয়ে গেল? দিদি তুমি কার দলে?’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here