নিজস্ব প্রতিবেদক, সোনারপুর: নেশার টাকা দিতে না চাওয়ায় পেরেক লাগানো বাঁশ দিয়ে নৃশংস ভাবে খুনের চেষ্টা করল স্বামী। বুধবার দুপুরে ঘটনাটি ঘটেছে সোনারপুরের খুঁড়িগাছি এলাকায়। শুধু তাই নয়, অভিযোগ স্বামীর এই কাজে রীতিমতো মদত জুগিয়েছে ভাশুর ও শ্বাশুরি। এই মর্মেই সোনারপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করলেন আক্রান্ত স্ত্রী।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রের খবর, ৮ বছর আগে প্রেম করে দীলিপ মণ্ডলের সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল পদ্মা মণ্ডলের। দীলিপ বাঘাযতীন এলাকায় রিকশা চালানোর কাজ করে। পদ্মা নিজেও সংসার চালাতে পরিচারিকার কাজ নেই। আর সেই কাজ করেই ঘরে টিভি, ফ্যান প্রভৃতি কিনেছেন ওই মহিলা। তাঁর অভিযোগ, ইদানিং তার স্বামী কাজে যায় না। বাড়িতেই থাকেন। সে কাজ থেকে বাড়ি ফিরলে তার কাছে টাকা চায়। প্রথম দিকে স্বামীকে টাকা দিয়েছে পদ্মা। কিন্তু টাকা পেয়েই তা দিয়ে মদ খেতে শুরু করে স্বামী। তাই গত কয়েকদিন ধরে স্বামীকে টাকা দিতে রাজি হচ্ছিল না সে। ঘটনার জেরে রীতিমতো রাগে ফুসছিল অভিযুক্ত দিলীপ। বুধবার দুপুরে পদ্মা কাজ থেকে বাড়ি ফিরতেই দীলিপ তার কাছে মদ খাওয়ার জন্য টাকা চায় বলে অভিযোগ। আর সেই টাকা দিতে রাজি না হওয়াতেই প্রথমে বন্দুকের বাঁট দিয়ে পদ্মার মাথায় আঘাত করে দিলীপ। তারপর পেরেক লাগানো বাঁশ দিয়ে এলোপাথাড়ি মারধোর শুরু হয়।

সেদিনই কোনরকমে ছেলেকে নিয়ে বাপের বাড়িতে চলে যায় পদ্মা। মাকে সঙ্গে নিয়ে রাতেই স্বামী, ভাশুর ও শ্বাশুরির বিরুদ্ধে সোনারপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করে সে। জানা গেছে ঘটনার জেরে মাথায় ভালো রকম আঘাত পেয়েছেন পদ্মা। বেশ কয়েকটি সেলাই পড়েছে তাঁর মাথায়। অভিযোগের ভিত্তিতে পুরো ঘটনায় তদন্ত শুরু করেছে। খোঁজ চলছে অভিযুক্ত দিলীপের।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here