ছবি প্রতীকি

নিজস্ব প্রতিবেদক, ব্যারাকপুর, ৬ মে: উত্তর ২৪ পরগনার জগদ্দল থানার অন্তর্গত শ্যামনগরের কাউগাছি রামকৃষ্ণ পল্লী এলাকা। রবিবার সকালে এলাকাবাসী মুখোমুখি হলেন এক মর্মান্তিক ঘটনার। পেশায় ইছাপুর রাইফেল ফ্যাক্টারির কর্মী লক্ষন ওড়াও (৪৮)। বেসরকারি স্কুলের শিক্ষিকা স্ত্রী পুষ্প ওড়াও। লক্ষণকে বাঁশ দিয়ে পিটিয়ে খুনের অভিযোগ পুষ্পর বিরুদ্ধে।

রবিবার সকালে লক্ষণের স্ত্রীর কান্না শুনে প্রতিবেশীরা ছুটে যায় তাদের বাড়িতে ।জানাজানি হয় খুনের ঘটনা। প্রতিবেশীরা লক্ষনের বাড়িতে ভিড় করলে দেখতে পান লক্ষণের মৃতদেহ মেঝেতে শোয়ানো অবস্থায় পড়ে আছে এবং অ্যাম্বুলেন্স ডেকে মৃতদেহ ঘর থেকে বাইরে বের করার চেষ্টা করছে অভিযুক্ত স্ত্রী পুষ্প। উত্তেজিত ও ক্ষুদ্ধ জনতা পুষ্পর কঠোর সাজার আর্জি জানিয়েছেন। প্রতিবেশীদের মতে মদ্যপ অবস্থায় লক্ষন বাড়িতে আসলে স্ত্রী পুষ্প, স্বামী লক্ষনকে বাঁশ ও লাঠি দিয়ে পেটাতো। নিত্যদিন মদ খাওয়া নিয়ে স্বামী স্ত্রীর মধ্যে অশান্তি লেগেই থাকত বলে অভিযোগ স্থানীয়দের । শনিবার রাতেও লক্ষণের সঙ্গে তার স্ত্রীর চরম অশান্তি হয় । রবিবার সকালে ফের লক্ষন ও পুষ্পর মধ্যে নতুন করে অশান্তি বাঁধলে পুষ্প বাঁশ দিয়ে পিটিয়ে স্বামী লক্ষনের মাথায় বাড়ি মারে। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় লক্ষনের। নাবালিকা কন্যার সামনেই স্বামী লক্ষণের উপর দীর্ঘদিন ধরে শারীরিক নির্যাতন চালাত পুষ্প বলে অভিযোগ করেছেন স্থানীয়েরা।

স্থানীয় বাসিন্দারাই  ফোন করে জগদ্দল থানায় খবর দেন । জগদ্দল থানার পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে রবিবার দুপুরে তা ময়নাতদন্তের জন্য ব্যারাকপুর মর্গে পাঠিয়েছে । অভিযুক্ত স্ত্রী পুষ্প ওরাও ও ওই দম্পতির একমাত্র নাবালিকা কন্যাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে জগদ্দল থানার পুলিশ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here