Home Featured মারা হবে শয়ে শয়ে গণেশের বাহন? দ্বিধায় বিজেপি

মারা হবে শয়ে শয়ে গণেশের বাহন? দ্বিধায় বিজেপি

0
মারা হবে শয়ে শয়ে গণেশের বাহন? দ্বিধায় বিজেপি
Parul

নিজস্ব প্রতিনিধিইঁদুর নিয়ে বিড়ম্বনায় বঙ্গ বিজেপি! গণেশের বাহনকে মারা হবে নাকি তাদের ঝাড়েবংশে বাড়তে দিতে হবে, তা নিয়ে কার্যত দ্বিধা বিভক্ত গেরুয়া শিবির। বিজেপির বঙ্গ সংস্করণ ইঁদুর মারার পক্ষে সায় দিলেও, বাধ সেধেছে হিন্দিভাষী অংশ। এমতাবস্থায় মনের আনন্দে বংশবিস্তার করে চলেছে মুষিককুল!

বাংলায় বিজেপির সদর দফতর মুরলীধর সেন লেনে। দ্বিতল এই বাড়িটি শতাব্দী প্রাচীন। সবার অজান্তে এই বাড়িতেই ঘাঁটি গেড়েছে ইঁদুরকুল। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে তারা সাজিয়েছে পরিপাটী সংসার। ইঁদুরের দাপটে কার্যত নিজ ভূমে পরবাসী হওয়ার দশা বিজেপি নেতাদের!দাঁতে ধার দিতে এই মুষিকরাই নিত্য কেটে চলেছে জরুরি ফাইল, কাগজপত্র। বাড়ির নিরাপত্তায় বসানো হয়েছিল ১৬টি সিসিটিভি। মাস তিনেক আগে বসানো ওই সিসিটিভি আপাতত বিকল। কারণ দাঁতে ধার দিতে তার কেটে দিয়েছে গণেশের বাহনরা।

ইঁদুরের উপদ্রবে রাশ টানতে মুষিককুল ধ্বংসের জোরালো দাবি উঠেছে বিজেপির অন্দরেই। বিজেপির বঙ্গ সংস্করণ যখন বিষ প্রয়োগ করে ইঁদুর মারার পক্ষপাতী, তখন গণেশের বাহনকে কিছুতেই মারতে রাজি নন বিজেপির হিন্দিভাষী অংশ। স্বাভাবিকভাবেই দিনের পর দিন বেড়ে চলেছে ইঁদুরের উৎপাত।

জ্যোতি বসু যখন মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন, তখন একবার মহাকরণে ব্যাপক উপদ্রব হয়েছিল ইঁদুরের। সেই ইঁদুর মারতে মহাকরণে নিয়ে আসা হয়েছিল বিড়াল। তাতে ইঁদুরের সংখ্যা কমলেও, বেড়ে গিয়েছিল মা ষষ্ঠীর বাহনরা। পরে ফের লোকজন ডেকে বিড়ালমুক্ত করা হয়েছিল মহাকরণ। বামেদের দেখানো পথেই কী হাঁটবে বিজেপি? উঠছে প্রশ্ন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here