kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি, দুর্গাপুর: সরকারি গাড়ি করে মদ বিপুল মদ নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। ঘটনাটি দুর্গাপুরের লাউদোহা থানার ফরিদপুরের কাঁটাবেড়িয়া গ্রামের। বিদ্যুৎ দফতরের একটি গাড়িতে করে মদ যাচ্ছিল ফরিদপুরের কাঁটাবেড়িয়া গ্রাম হয়ে। এলাকার মানুষ গাড়ি আটকে, মদের বোতল ফেলে বিক্ষোভ দেখায়। এলাকার মানুষের অভিযোগ, প্রায় রোজ গ্রামের রাস্তা দিয়ে বিদ্যুৎ দফতরের গাড়ি পারাপার করে। আজও সেই রকম একটি গাড়ি যাচ্ছিল। গাড়িতে মদের বোতল ত্রিপল দিয়ে ঢাকা ছিল। সেই ত্রিপল বাতাসে উড়ে গেলে মদের বোতলগুলি দেখা যায়।

এরপর এলাকার মানুষ সেই গাড়িটি আটকায়। গাড়ির ড্রাইভার ও খালাসি পরিস্থিতি বেগতিক দেখে পালিয়ে যায়। পরে মদের বোতল ফেলে দিয়ে তুমুল বিক্ষোভ দেখায় এলাকার মহিলারা। এলাকার মানুষজন জানান, লকডাউনের সময় এই ভাবে দেশি মদ পাচার কেন হবে। ঘটনাস্থলে আসে ফরিদপুর থানার পুলিশ। এলাকার মানুষজন পুলিশকে ঘিরে ধরে বিক্ষোভ দেখায়। বাসিন্দাদের প্রশ্ন,  কী করে মদ নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল বিদ্যুৎ দফতরের গাড়িতে করে? এলাকার মানুষ জানান, যতক্ষণ না বিদ্যুৎ দফটরের আধিকারিক এবং আবগারি দফতরের আধিকারিকরা আসবেন, ততক্ষণ বিক্ষোভ চলবে।

উল্লেখ্য,গত সোমবার রাতে চুপিচুপি বাঁকুড়া শহর লাগোয়া ভাদুল গ্রামে থাকা ওয়েস্ট বেঙ্গল স্টেট বেভারেজেস কর্পোরেশনের ওয়্যার হাউস থেকে পনেরোটি গাড়িতে বিপুল পরিমাণ বিদেশি মদ বোঝাই করে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল জেলার বিভিন্ন প্রান্তে।

বাঁকুড়া সদর থানার দু’নম্বর ব্লকের ভাদুল গ্রামে অবস্থিত আবগারি দফতরের গোড়াউন থেকে রাতের অন্ধকারে ছোট-বড় মিলিয়ে প্রায় ১৫টি গাড়ি বোঝাই করে বিলিতি মদ নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল জেলার বিভিন্ন প্রান্তে। মদ বোঝাই আটটি গাড়ি চলে যেতে সমর্থ হলেও বাকি সাতটি বিলিতি মদ বোঝাই গাড়ি আটক করা হয়। গাড়িগুলির প্রত্যেকটিতেই বোঝাই করা ছিল নামি কোম্পানির বিলিতি মদ। আটক করা হয় গাড়ি চালকদেরও। জিজ্ঞাসাবাদ জানা যায়, তাদেরকে আফগারি দফতরের তরফে লিখিত অনুমতি দেওয়া হয়েছে এই মদ নিয়ে যাওয়ার জন্য। কিন্তু তারা কোনও রকম মদ সরবরাহের সরকারি কাগজ দেখাতে পারেননি। যা নিয়ে বেশ উত্তেজনা ছড়ায়।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here