মহানগর ডেস্ক: গতকাল রাত্রে দেশবাসীর উদ্দেশে বার্তা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। একসঙ্গে মোকাবিলা করতে বলেছেন করোনা পরিস্থিতিকে। এরপরেই কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে ঘোষণা করা হল করোনা যোদ্ধাদের জন্য যে বিমা ছিল তা বহাল থাকবে। গত সোমবার বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল ডাক্তার, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মীদের বিমা ব্যবস্থা। প্রধান মন্ত্রীর গরিব কল্যাণ প্যাকেজের এই বিমাটি আবার চালু করার সিধান্ত নেওয়া হল কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে।

২০২০ সালে ৩০ মার্চ থেকে ৫০ লক্ষ টাকার এই বিমা ব্যবস্থা তিন মাসের জন্য চালু করা হয়েছিল। এই বিমার আওতায় আনা হয়েছিল দেশের সমস্ত ডাক্তার, নার্স, এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের যারা করোনা যোদ্ধা হিসেবে সামনের সারিতে থেকে কাজ করছেন। আপৎকালীন পরিস্থিতিতে তাঁদের কারও মৃত্যু হলে বাড়ির লোকেদের হাতে তুলে দেওয়া হত এই অর্থ। পরে সংক্রমণের পরিস্থিতি দেখে বিমার মেয়াদ বাড়ানো হয়। তবে, দিন কয়েক আগেই কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য সচিব রাজেশ ভূষণ প্রত্যেক রাজ্যের মুখ্যসচিবকে চিঠি দিয়ে জানিয়েছিলেন, ২৪ মার্চ ২০২১ সালে এই বিমার মেয়াদ শেষ হয়ে গিয়েছে।

 এই ঘোষণার পরেই বিতর্কের মুখে পড়ে কেন্দ্র সরকার। ওয়াকিবহল মহল থেকে প্রশ্ন ওঠে করোনা যোদ্ধারা প্রতি মুহূর্তে নিজেদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছেন। সেক্ষেত্রে তাঁদের সুরক্ষা বিমা কিভাবে তুলে নেওয়া হল? এর মধ্যেই দেশে আছড়ে পড়ে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ। বিভিন্ন রাজ্যে পরিস্থিতি হয়ে উঠেছে সঙ্কটজনক। ফলে সমালোচনার পাশাপাশি করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের চাপের মুখে পড়ে কেন্দ্রীয় সরকার। মঙ্গলবার রাতেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় এই বিমা বহাল রাখার। গতকাল থেকে আবার কার্যকর হয়েছে এই বিমা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here