ফের পণপ্রথার বলি গৃহবধূ, শ্বাসরোধ করে খুন করে দেহ ঝুলিয়ে দেওয়ার অভিযোগ, পলাতক স্বামী, শাশুড়ি, ননদ

0
73

নিজস্ব প্রতিবেদক, মালদা: পণপ্রথা বন্ধ করতে সরকার কড়া শাস্তির ব্যবস্থা করেছে। পণ দিলে বা নিলে আর্থিক জরিমানার পাশাপাশি গ্রেফতারিও হতে পারে। কিন্তু সরকারের এত কিছু পদক্ষেপ সত্ত্বেও প্রশাসনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে আজও জাঁকিয়ে চলছে পণপ্রথা। আর সেই প্রথার বলি হচ্ছে সংসার করার স্বপ্ন নিয়ে শ্বশুরবাড়িতে আসা অল্পবয়সি মেয়েরা। এবার ঘটনাস্থল মালদার এক গ্রাম।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, মালদার মানিকচক থানার চৌকি মিরদাদপুর অঞ্চলের কোরিটোলা গ্রামের গৃহবধূ পায়েল বিবির বিয়ের ৯ মাসের মাথাতেই অস্বাভাবিক মৃত্যু হল। পণের জন্যই তাঁকে শ্বাসরোধ করে খুন করা হয়েছে অভিযোগে সরব হয়েছেন পায়েলের মা হাসিনা বিবি। যদিও বৃহস্পতিবার সকালে পায়েলের শ্বশুরবাড়ি থেকে তাঁর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়েছে। হাসিনা বিবির অভিযোগ, তাঁর জামাই ওবায়দুর রহমান ও তার পরিবারের লোকেরা পায়েলকে শ্বাসরোধ করে খুন করে এবং আত্মহত্যা প্রমাণের চেষ্টায় তাঁর দেহটি গলায় দড়ি দিয়ে ঝুলিয়ে দেয়। স্থানীয় থানাতেও অভিযোগ দায়ের করেছেন তিনি। এদিকে, ঘটনার পর থেকে ওবায়দুর রহমান ও তার পরিবারের লোকেরা পলাতক। ফলে তাদের দিকে সন্দেহ আরও দৃঢ় হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, মাত্র ৯ মাস আগে দেখাশোনা করেই ওবায়দুর রহমানের সঙ্গে পায়েলের বিয়ে হয়। বিয়ের সময় ওবায়দুর যথেষ্ট পণ নিয়েছিল। বকেয়া ছিল কেবল টিভি ও শোকেস। বিয়ের পর সেগুলি দিয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন পায়েলের বাবা-মা। কিন্তু অভাবের তাড়নায় মেয়ের বিয়ের পর নয় মাস কেটে গেলেও পণের বকেয়া সামগ্রী দিতে পারেননি তাঁরা। আর এর জন্য রোজই পায়েলের উপর তাঁর স্বামী, শাশুড়ি ও ননদ মিলে অত্যাচার চালাত বলে অভিযোগ। হাসিনা বিবি জানান, পায়েলের উপর শারীরিক ও মানসিক অত্যাচার চলত। এমনকি পণের বকেয়া সামগ্রী দিতে না পারার জন্য পায়েলকে বাপেরবাড়িও আসতে দিত না। কয়েকমাস আগে ওবায়দুর রহমান ভিন রাজ্যে কাজ করতে যায়। তারপর গত মঙ্গলবার সে বাড়ি ফিরে আসে এবং তার পরদিন অর্থাত্ বুধবার রাতেই পায়েলের মৃত্যু হয়। হাসিনা বিবির অভিযোগ, বকেয়া টিভি ও শোকেস নিয়ে বচসার জেরেই বুধবার রাতে পায়েলকে শ্বাসরোধ করে খুন করেছে তাঁর জামাই ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন। তারপর দোষ ঢাকতে পায়েলের দেহ ঝুলিয়ে দেওয়া হয়। ঘটনার তদন্তে পায়েলের দেহটি ময়নাতদন্তে পাঠিয়েছে পুলিশ। ওবায়দুর রহমান ও তার পরিবারের লোকেদেরও খোঁজ শুরু করেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here