২১-এর সভার পথে জন্ম, মেয়ের নাম ‘একুশি’ রাখলেন মা

0
45

মহানগর ওয়েবডেস্ক: ‘দিদি’-র ২১ জুলাইয়ের সভা বলে কথা! শারীরিক অবস্থা যেমনই হোক, সভায় যেতেই হবে। স্বামীকে এমনটাই বলে দলের সহকর্মীদের সঙ্গে ধর্মতলার উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছিলেন পূর্ব বর্ধমানের নীলপুরের অন্তঃসত্ত্বা তৃণমূল কর্মী রেখা সরকার। যদিও শহিদ দিবসের সভা মঞ্চ পর্যন্ত পৌঁছোতে পারেননি। মাঝ রাস্তাতেই উঠল প্রসব বেদনা। তবে বিশেষ সমস্যা হয়নি। দলীয় কর্মীদের সহায়তায় সুস্থভাবেই কন্যাসন্তানের জন্ম দিয়েছেন তিনি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সভায় আসার পথে যেহেতু সন্তান ভূমিষ্ঠ হয়েছে, তাও আবার কন্যাসন্তান, তাই তার নাম হবে ‘একুশি’। ঘটনাস্থলে উপস্থিত দলীয় কর্মীদের কাছে এমনই ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল নেত্রীর একনিষ্ঠ কর্মী রেখা।

জানা গিয়েছে, পূর্ব বর্ধমানের তৃণমূল শাখার একনিষ্ঠ কর্মী রেখা সরকার। শারীরিকভাবে সম্পূর্ণ সুস্থ না হলেও মনের জোরেই রবিবার ধর্মতলায় ২১-এর সভায় যাওয়ার পণ করেছিলেন তিনি। পরিবার-পরিজনের সমস্ত বাধা-নিষেধ উপেক্ষা করে তিনি এদিন সকালে নীলপুরের তৃণমূল কর্মীদের সঙ্গে বাসে করে ধর্মতলার দিকে রওনা দেন। সকাল আটটা নাগাদ বাস ছাড়ে। প্রথমদিকে বিশেষ কোনও সমস্যা হয়নি। কিন্তু বাসটি বরাহনগরে বিটি রোডের কাছে পৌঁছতেই তীব্র প্রসব যন্ত্রণা ওঠে রেখার। হাসপাতাল পর্যন্ত যাওয়ারও সময় দেননি। দলীয় কর্মীদের সহায়তায় বাসের মধ্যেই কন্যা সন্তানের জন্ম দেন রেখা। তারপর আর রেখার ধর্মতলার সভামঞ্চে যাওয়ার মত অবস্থা ছিল না। তাই বাসটি ধর্মতলা যাওয়ার আগে নিকটবর্তী বরাহনগর স্টেট জেনেরাল হাসপাতালে গিয়ে থামে। সেখানেই রেখা ও তাঁর সন্তানকে ভর্তি করা হয়। রেখার পরিবারেও খবর দেওয়া হয়। যদিও পরিবারের কেউ আসার আগেই রেখা ও তাঁর সদ্যোজাতর চিকিত্সা শুরু করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। বর্তমানে মা ও শিশু দু’জনেই সুস্থ রয়েছে বলে আশ্বস্ত করেছেন হাসপাতালের চিকিত্সকরা।

রেখার সন্তান প্রসবের ক্ষেত্রে তৃণমূল কর্মী ও বরাহনগর স্টেট জেনেরাল হাসপাতালের চিকিত্সকদের সহায়তায় আপ্লুত তাঁর স্বামী অজিত সরকার। তিনি বলেন, ‘প্রতি বছরের মতো এবছরও রেখা ধর্মতলার উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছিল। মাঝপথে বাসেই কন্যা সন্তানের জন্ম দেয়। তৃণমূল কর্মীদের তত্পরতা এবং সরকারি হাসপাতালের আপৎকালীন পরিষেবা চমৎকার ছিল।’ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ২১ জুলাইয়ের সভায় যাওয়ার পথে ভূমিষ্ঠ হয়েছে এই শিশুকন্যা। তাই তার নামকরণ ‘একুশি’ একেবারে যথার্থ বলেই মনে করেন অজিতবাবু।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here