ডেস্ক: ফের একবার শহরে রবিনসন স্ট্রিট কাণ্ডের ছায়া। মায়ের পচাগলা দেহ আগলে রেখে বসেছিল ছেলে। মৃতের নাম রেবা গুপ্ত (৮৩)। চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ কলকাতার চেতলা এলাকায়।

জানা গিয়েছে, শুক্রবার সন্ধ্যায় ওই এলাকার একটি আবাসন থেকে রেবার ঝলসানো পচাগলা মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। প্রতিবেশী সূত্রে খবর পেয়ে পুলিশ এসে মৃতদেহ উদ্ধার করে। সেই সময় বাড়িতেই ছিল তাঁর ছেলে সঞ্জীবশঙ্কর গুপ্ত। স্থানীয় সূত্রে খবর, শুক্রবার সন্ধেবেলায় রেবা দেবীর ফ্ল্যাট থেকে পোড়া গন্ধ পাচ্ছিলেন তাঁরা। আগুন লেগেছে এই আশঙ্কা করে অন্যান্য আবাসনের বাসিন্দারা সেখানে ছুটে যান। কিন্তু সেখানে এক দৃশ্য দেখে তাঁরা হতভম্ব হয়ে যান। দেখেন ওই মহিলার ছেলে মায়ের ঝলসানো দেহ আগলে রেখেছে। তাঁরা জানান, দেহটি একেবারে পচাগলা অবস্থায় ছিল। পুলিশ রেবা দেবীর মৃতদেহকে ইতিমধ্যেই ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়ে দিয়েছে। এদিকে তাঁর ছেলে সঞ্জীবশঙ্করকে পুলিশ লাগাতার জেরা করছে। পুলিশ গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।

 

উল্লেখ্য, গত ফেব্রুয়ারি মাসেই বেহালার সরশুনা এলাকায় তিনদিন ধরে নিজের ছেলের মৃতদেহ বাড়িতে রেখেছিল বাবা-মা। সেইসময় বাড়ি থেকে পচা গন্ধ বেরোতে থাকার ফলে স্থানীয় পুলিশকে খবর দেন সরশুনা থানার অন্তর্গত রাখাল রোডের বাসিন্দারা। তদন্ত করতে আসার পরেই বাড়ি থেকেই ওই ব্যক্তির মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। সেইসময়ে এলাকার বাসিন্দাদের দাবি ছিল, মৃত ব্যক্তির বাবা আর এন চ্যাটার্জি কিছুটা স্বাভাবিক হলেও মা এবং বোন দুজনের পুরোপুরি মানসিক ভারসাম্যহীন ছিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here