hungry child bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: গোটা বিশ্বের অর্থনীতিতে ব্যাপকভাবে ধাক্কা দিয়েছে মারণ করোনাভাইরাস। তার ভয়াবহতায় নাকাল পৃথিবী। এরই মাঝে রাষ্ট্রপুঞ্জের তরফে প্রকাশিত এক রিপোর্ট দাবি করছে ২০২০ সালের শেষ লগ্নে গোটা বিশ্বের প্রায় ১৩ কোটি মানুষ চরম খাদ্য সংকটের সম্মুখীন হবেন। আর এই ঘটনাকে বিপদ সংকেত হিসেবে দেখছে বিশ্ব। অনুমান করা হচ্ছে এক ভয়াবহ পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে চলেছে পৃথিবী। যে পরিস্থিতি সামাল দিয়ে ওঠা বেশ কষ্টসাধ্য।

রাষ্ট্রপুঞ্জের প্রকাশিত রিপোর্টে দাবি করা হয়েছে, কোভিড-১৯ অতিমারির জেরে ২০২০ সালের শেষ লগ্ন পর্যন্ত বিশ্বজুড়ে ১৩ কোটি মানুষ চরম অনাহারের মুখোমুখি হবেন। শতাংশের হিসেবে রাষ্ট্রপুঞ্জের যে তথ্য পেশ করেছে সেখানে বলা হয়েছে, এই সংকটের জেরে সবচেয়ে বেশি বিপদের মুখে পড়বে আফ্রিকা। এখানে ইতিমধ্যেই ১৯.১ শতাংশ লোক অপুষ্টির শিকার। বর্তমান পরিস্থিতি যা তাতে ২০৩০ সাল পর্যন্ত আফ্রিকার অর্ধেকের বেশি মানুষ বিশ্বের সবচেয়ে দীর্ঘ সময় ক্ষুধার্ত মানুষে পরিণত হবে। কোভিড-১৯ বিশ্বব্যাপী খাদ্য ব্যবস্থার অপ্রতুলতা এবং সমস্যা বাড়িয়ে চলেছে কারণ করোনা খাদ্য উৎপাদন প্রক্রিয়াকরণ বিতরণ ব্যবস্থাকে প্রভাবিত করেছে।

রাষ্ট্রপুঞ্জের প্রকাশিত প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, এই মুহূর্তে লকডাউন ও তার প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থার মূল্যায়ন করাটা বড় তাড়াহুড়ো হবে। তবে অনুমান করা হয়েছে যে ২০২০ সালে কমপক্ষে আরও ৮.৩ কোটি মানুষ এবং সম্ভবত ১৩.২ কোটি মানুষ কোভিড -১৯ এর কারণে অর্থনৈতিক মন্দা দ্বারা প্রভাবিত হবেন। যা আসলে অনাহার। রিপোর্ট বলছে বর্তমান সময়ে বিশ্বের ৩ আরব ও তার বেশি সংখ্যক মানুষ স্বাস্থ্যকর খাবার খেতে অক্ষম। এবং এই পরিসংখ্যান তুলে আনা হয়েছে উপ সাহারা, আফ্রিকা, দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলির ৫৭ শতাংশ জনবসতির সঙ্গেই। যদিও আমেরিকা ইউরোপ মত মহাদেশ গুলি ও বাদ যাচ্ছে না এই ভয়াবহতা থেকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here