khagendra dies bengali news

Highlights

  • বিশ্বের ক্ষুদ্রতম মানুষের জীবনাবসান
  • চলে গেলেন নেপালের বাসিন্দা খগেন্দ্র থাপা মাগার
  • ২০১০-এ বিশ্বের ক্ষুদ্রতম ব্যক্তির তকমা পান তিনি

মহানগর ওয়েবডেস্ক: চলে গেলেন বিশ্বের ক্ষুদ্রতম মানুষ খগেন্দ্র থাপা মাগার। ২৭ বছর বয়সে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসধারী খগেন্দ্র। নেপালের বাগলাঙ জেলার বাসিন্দা খগেন্দ্রর উচ্চতা ২ ফুট ২.৪১ ইঞ্চি (৬৭.০৮ সেমি)। নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে তাঁর মৃত্যু হয়েছে বলে সংবাদসংস্থাকে জানিয়েছেন খগেন্দ্রর ভাই। খগেন্দ্রর প্রতি শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করেছেন গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ডস রেকর্ড কর্তৃপক্ষ। তাঁর ছোট আকার কখনও প্রতিবন্ধকতা হয়নি। জীবনের প্রতিটি মুহূর্তই উপভোগ করতেন খগেন্দ্র।

২০১০ সালে এক অনুষ্ঠানে নিজের ১৮তম জন্মদিনে মাগার বিশ্বের ক্ষুদ্রতম ব্যক্তির তকমা পান। বহু আন্তর্জাতিক গন্যমান্য ব্যক্তি ও স্থানীয় মানুষদের সামনে তাঁকে সম্মানিত করা হয়। সেদিন খগেন্দ্র বলেছিলেন, “আমি নিজেকে ক্ষুদ্র ব্যক্তি বলে মনে করি না, আমি একজন বড় মানুষ। আমি আশা করছি, এই সম্মান পাওয়ার পর তা আমি প্রমাণ করতে পারব। নিজের জন্য ও পরিবারের জন্য একটা বাল বাড়ি তৈরি করতে পারব”।

বিশ্বের ক্ষুদ্রতম মোবাইল মানুষের তকমা প্রথমে জোটেনি খগেন্দ্রর ভাগ্যে। তাঁরই স্বদেশীয় চন্দ্র বাহাদুর দাঙ্গি তাঁকে হারিয়ে এই সম্মান জিতে নেন। দাঙ্গির উচ্চতা ১ ফুট ৮২৪ ইঞ্চি (৫৪.৬ সেমি)। যদিও ২০১৫ সালেই সেই খেতাব দাঙ্গির থেকে ছিনিয়ে নেন খগেন্দ্র।

খগেন্দ্র থাপা মাগারকে প্রথম দেখা গিয়েছিল স্থানীয় একটি মেলায়। তখন তাঁর বয়স ছিল ১৪ বছর। মেলায় আসা শিশুরা তাঁরা পাশে দাঁড়িয়ে ছবি তোলার জন্য উৎফুল্ল ছিল। সেইসময়ই এক সেলসম্যানের নজরে আসেন মাগার।

২০১০ সালে গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে সম্মান পাওয়ার পর বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে ঘুরে বেড়ান খগেন্দ্র। সংবাদমাধ্যম, টেলিভিশনের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশ নিতে থাকেন তিনি। বিশেষত ইউরোপ ও আমেরিকার বিভিন্ন টেলিভিশন শো-তে দেখা যায় খগেন্দ্রকে।

বিশ্বের ক্ষুদ্রতম মানুষের প্রয়াণে শোকস্তব্ধ বিশ্বের বিভিন্ন মঞ্চ। গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসের এডিটর-ইন-চিফ ক্রেগ গ্লেনডে জানিয়েছেন, খগেন্দ্র থাপা মাগারের মৃত্যুতে তিনি ভীষণভাবে দুঃখিত। তাঁর উজ্জ্বল হাসিটি এতটা সংক্রামক ছিল যে যার সঙ্গে দেখা হয়েছিল তাঁর হৃদয়ই গলিয়ে দিত। বলেন গ্লেনডে।

সদাহাস্য সেই খগেন্দ্রর প্রয়াণে বিশ্বের শোকস্তব্ধ বিশ্ব। তিনি চলে গেলেও কথা রেখেছেন তিনি। তিনি প্রমান করেছেন যে তিনি একজন অনেক বড় মানুষ। আর তাই খগেন্দ্রর সেই মনমোহিনী হাসি মুখটাই সবথেকে বেশি মনে পড়ছে দেশে-বিদেশে তাঁর অসংখ্য ভক্ত, অনুরাগীদের। আন্তর্জাতিক বিভিন্ন মঞ্চের কর্তাব্যক্তিরাও খগেন্দ্রকে হারিয়ে শোকগ্রস্ত। সবার মুখেই একটাই কথা রেস্ট ইন পিস খগেন্দ্র।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here