news bengali

নিজস্ব প্রতিবেদক: করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে বন্ধ বিভিন্ন শিক্ষা দফতর। শিক্ষক শিক্ষণ মহাবিদ্যালয় বেশিরভাগই বেসরকারি। লকডাউন চালু হওয়ার পর থেকেই শিক্ষক-শিক্ষিকাদের জুটছে না প্রাপ্য বেতন।

শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ফি-এর টাকা কমাচ্ছে না একাধিক বেসরকারি মহাবিদ্যালয়। বিভিন্ন কলেজে নেওয়া হয়েছে অনলাইন ক্লাস। শিক্ষার্থীদের পিডিএফ করে জমা দিতে হয়েছে অ্যাসাইনমেন্ট। সবই দেখতে হবে শিক্ষক-শিক্ষিকাদের।

দীর্ঘ মাস বেতন না পেয়ে একাধিক জায়গায় শিক্ষক-শিক্ষিকারা বন্ধ করেছেন অনলাইন ক্লাস। ফেসবুক-হোয়াটসঅ্যাপ সহ বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ায় খোলা হয়েছে শিক্ষকদের গ্রুপ। এই গ্রুপে গড়ে তোলা হচ্ছে নিজেদের দাবি আদায়ের জনমত। চলছে অনলাইন পিটিশন প্রক্রিয়া। সূত্রের খবর, সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন জায়গায় জানানো হয়েছে অভিযোগ।

এতকিছু করেও লাভ হয়নি কিছুই। শিক্ষকদের অভিযোগ, নির্দেশিকা থাকলেও তা বেতন দেওয়ার ক্ষেত্রে মানা হয়না। বিভিন্ন বেসরকারি শিক্ষক শিক্ষণ মহাবিদ্যালয়ের চিত্রটা প্রায় এক। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক বি. এড- ডি.এল.এড কলেজের শিক্ষক বলেন, ‘আমরা তৈরি করি জাতির মেরুদণ্ড। আজ এই করুণ অবস্থায় আমাদের পাশে কেউ নেই’।

বি.এড কলেজের উপাচার্য আগেই অনুরোধ জানিয়েছেন, বেতন কাটা বা কর্মী ছাঁটাই করা যাবে না। অভিযোগ, মানা হচ্ছে না সেই নির্দেশিকা।

পার্ট টাইম- ফুলটাইম অনেক শিক্ষক-শিক্ষিকা’ই বেসরকারি কলেজে চাকরি পাওয়ার পর ছেড়ে দিয়েছেন টিউশন পড়ানো বা অন্য কাজ। কলেজের বেতন বাদে তাদের নেই অন্য কোনও সম্বল। এই পরিস্থিতিতে ভুক্তভোগীরা বোর্ড ও সরকারের উপযুক্ত হস্তক্ষেপ চাইছেন।

(অনলাইন পিটিশন-এর ফর্মের ছবি সোশ্যাল মিডিয়া থেকে সংগৃহীত)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here