ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর পর কর্ণাটকে প্রচারের ঝড় তোলা শুরু করলেন উত্তরপ্রদেশ মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। আর যোগী মানেই যে তাঁর ভাষণে উগ্রতার ঝাঁঝ থাকবে তা স্পষ্ট। সেই মতোই কর্ণাটকের সিরসিতে এক জনসভায় রাজ্যে জিহাদি শাসন চলছে বলে দাবি করে করেন তিনি। যোগীর মতে, নির্বাচনে বিজেপি জিতিয়ে এবার দক্ষিণী এই রাজ্যে জাতীয়তাবাদী সরকার প্রতিষ্ঠার প্রয়োজন হয়ে পড়েছে।

এদিনের জনসভায় যোগী বলেন, আজ উত্তরপ্রদেশে জিহাদি নেই, কিন্তু কর্ণাটকে জিহাদির কর্তৃত্ব চলছে। তিনি দাবি করেন, এখন উত্তরপ্রদেশে নির্দোষীদের হত্যা করা যায়না। কিন্তু কর্ণাটকে হিন্দুদের হত্যা করা হয়। গোবলয় রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী আরও বলেন, কর্ণাটকে বিজেপি এবং হিন্দু কর্মীদের হত্যা করা হচ্ছে। এবং কর্ণাটকে সরকার হত্যাকারীদের সমর্থন করছে। এই রাজ্যের প্রশাসনের ভূমিকা নিয়েও এদিন প্রশ্ন তোলেন যোগী।

বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী সিদ্দারামাইয়া আক্রমণ করে যোগী আরও বলেন যে তাঁর রাজ্যে ক্রমাগত বিনিয়োগ হচ্ছে। ইয়েদুরাপ্পা সরকার ক্ষমতায় এলে সেখানেও একই কাজ করবেন বলে প্রতিশ্রুতি দেন তিনি। জাতপাতের রাজনীতি নিয়েও এদিন কংগ্রেসকে আক্রমণ করেন যোগী। ২৩ জন বিজেপি কর্মীকে খুন করা হয়েছিল দাবি করে তিনি বলেন, উত্তরপ্রদেশ থেকে জিহাদিদের সাফ করে দেওয়া সম্ভব হলে তা কর্ণাটক সরকার কেন করছেন না?

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here