international news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: চিন গোটা বিশ্বের যতটা না ক্ষতি করেছে, তার থেকে অনেক বেশি ক্ষতি করেছে আমেরিকার। দু’দিন আগেই এই বিস্ফোরক দাবি করেছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। আমেরিকা যে চিনকে নিয়ে মোটেই সন্তুষ্ট নয় তা স্পষ্ট করে দিয়েছিলেন তিনি। চিনের বিরুদ্ধে আমেরিকা যে বেশ কিছু কড়া পদক্ষেপ নিতে চলেছে তা এদিন সাফ জানিয়ে দেওয়া হল হোয়াইট হাউসের তরফ থেকে। তবে কী সেই পদক্ষেপ সেই সম্পর্কে সাংবাদিকদের অবগত করা হয়নি। যদিও খুব শিগগির তা জানানো হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

আমেরিকায় করোনার সংক্রমণ ছড়ানোর পর থেকেই চিনের উপর অগ্নিশর্মা হয়ে রয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। এই ভাইরাস চিন থেকেই তাঁর দেশে ছড়িয়েছে বলে একাধিকবার অভিযোগ করেছেন তিনি। এমনকী ট্রাম্পকে এমনটাও বলতে শোনা গিয়েছে যে, চিন চাইলে শুরুতেই এই ভাইরাসের সংক্রমণকে আটকে দিতে পারত। কিন্তু তারা ছড়াতে দিয়েছে। বুধবার নতুন করে হোয়াইট হাউসের প্রেস সচিব কেলিঘ ম্যাকন্যানি জানিয়েছেন, আমেরিকা চিনের বিরুদ্ধে ‘অতিরিক্ত কিছু পদক্ষেপ’ নেওয়ার কথা ভাবছে। ম্যাকন্যানি বলেন, ‘রাষ্ট্রপতি ট্রাম্প কিছু বলার আগেভাগে আমি কিছু বলবো না যে কী পদক্ষেপ নেওয়া হবে। কিন্তু শিগগির আপনারা জানতে পারবেন এমন কিছু পদক্ষেপের কথা যেগুলি চিনের বিষয়ে হবে। আপাতত এটুকু নিশ্চিত।’

মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা রবার্ট ও’ব্রায়েন আবার জানিয়েছেন, সামনের কয়েকদিন এবং কয়েক সপ্তাহে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ করা হবে। ‘রাষ্ট্রপতি ট্রাম্প যেভাবে চিনের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছেন তা আজ অব্দি কেউ করেনি। ট্রাম্পই প্রথম বাণিজ্যিক অসাম্য ঘোচাতে চিনা আমদানির উপর ভারী শুল্ক চাপিয়েছিলেন’, বলেন ও’ব্রায়েন। এমনকী গালোয়ানে ঘটে যাওয়া সংঘর্ষ নিয়েও আমেরিকা ভারতের পাশেই দাঁড়িয়েছিল। ভারত চিনকে উপযুক্ত জবাব দিয়েছে বলে জানিয়েছেন মার্কিন সচিব মাইক পম্পেও।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here