kolkata bengali news

নিজস্ব প্রতিবেদক, বালুরঘাট: প্রথম দফা নির্বাচন শেষ৷ এখনও বাকি ছ দফা নির্বাচন৷ নির্বাচনী এই আবহাওয়ায় যেভাবে রাজনৈতিক দলগুলির কোন্দলে জড়িয়ে পড়ার খবর সংবাদ শিরোণামে উঠে আসছে তাতে সন্দহজনক কিছু দেখলেই প্রশাসন পদক্ষেপ নিচ্ছে৷ মঙ্গলবার দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার বুনিয়াদপুরে  মুখ্যমন্ত্রীর সভায় এরকমই একজন সন্দেহভাজনকে দেখে তাকে গ্রেফতার করতে উদ্যোগী হয়েছিল প্রশাসন৷ যদিও শেষ পর্যন্ত রহস্যের উন্মোচন হয়, এবং মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে সংখ্যালঘু ওই যুবককে ছেড়ে দেওয়া হয়৷

এদিন  নারায়ণপুরে বালুরঘাট লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী অর্পিতা ঘোষের সমর্থনে নির্বাচনী সভা করতে আসেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্বাচনী সভা চলাকালীন অবস্থায় এক যুবক সভা মঞ্চের দিকে ছুটে আসেন। ডি জোন টপকানোর চেষ্টা করলে দায়িত্বে থাকা নিরাপত্তা কর্মীরা ওই যুবককে আটকে দেয়৷ পরে যুবককে সভাস্থল থেকে বাইরে নিয়ে যান তারা।  যুবকের হাতে কিছু কাগজের নথি ছিল বলে জানা গিয়েছে।

যদিও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সভা মঞ্চ থেকে বলেন সভায় অশান্তি করার জন্য বিজেপি হয়তো পাঠিয়েছে ওই যুবককে৷ মুখ্যমন্ত্রী যুবককে ছেড়ে দেওয়ার নির্দেশ দেন৷ পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, যুবকের নাম আব্দুল ফিরোজ৷ বাড়ি কুশমণ্ডি থানার মালিগাঁও গ্রামে। যুবকের হাতে জমির কাগজ ছিল, পারিবারিক জমি বিবাদের জেরে মুখ্যমন্ত্রীর দারস্থ হতে চেয়েছিলেন বলে জানা গিয়েছে। নির্বাচনী এই মরসুমে চারিদিকে সংঘর্ষ ও অশান্তি ঘটনা ঘটছে ঠিকই, সন্দেহজনক কিছু চোখে পড়লে পদক্ষেপ করাটাও স্বাভাবিক, শাসক ও বিরোধীদের ভোট যুদ্ধ চলবে, কিন্ত অপরিচিত একজন মুখ্যমন্ত্রীকে কাছে পেয়ে সমস্যা জানাতে এসে যেভাবে হেনস্থা হতে হল যুবককে তা নিয়ে প্রশ্ন তুলছে বিরোধীরা৷ মুখ্যমন্ত্রী বারে বারে সংখ্যালঘু উন্নয়নের কথা বলেন, তারই মাঝে এমন ঘটনায় সমালোচনায় মুখর বিরোধীরা৷

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here