kolkata bengali news

নিজস্ব প্রতিবেদক, কৃষ্ণনগর: মাঠে জেতা বাজির টাকাই কি কাল হল মায়াপুরের বাসিন্দা বছর সাতেরোর সাইদুল হকের। এই প্রশ্নটাই এখন ঘুরপাক খাচ্ছে নদিয়া জেলার নবদ্বীপ থানার মায়াপুর বামনপুকুর-২ গ্রাম পঞ্চায়েতের চর কাষ্ঠশালী গ্রামের মাঝের পাড়ায়। কারন রবিবার বিকালে সাইদুলদের দোকানে ভিতর থেকেই উদ্ধার হয় তার হাত বাঁধা ঝুলন্ত মৃতদেহ। পাশাপাশি প্রশ্ন উঠে গিয়েছে হাত বাঁধা অবস্থায় কি করে একজন কিশোর আত্মঘাতী হয়? সাইদুলের মা এদিন সরাসরি অভিযোগ তুলেছেন সাইদুলের বন্ধুরাই টাকার লোভে তাঁকে খুন করে ঝুলিয়ে দিয়েছে।

রবিবার বিকেলে মাঝের পাড়ায় এই ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। সাইদুলের মা হীরা বেওয়া সোমবার নবদ্বীপ থানায় পাঁচ যুবকের নামে খুনের অভিযোগ দায়ের করেছেন। নবদ্বীপ থানার পুলিশ অবশ্য জানিয়েছে, ময়না তদন্তের রিপোর্ট হাতে না আসা পর্যন্ত কিছু বলা যাবে না। স্থানীয় ও পরিবার সূত্রে জানতে পারা গিয়েছে, রবিবার ছুটির দিন থাকায় এলাকার একটি মাঠে স্থানীয় ছেলেরা ক্রিকেট খেলছিল। সেখানে সাইদুল হকও বন্ধুদের সঙ্গে ক্রিকেট খেলতে যায়। সাইদুলের মায়ের অভিযোগ, ‘দুপুরের দিকে ছেলে বাড়িতে ফিরে জানায় সে খেলায় ৮০ টাকা জিতেছে। সে আরও জানায় বন্ধুরা মুড়ি খাবে জল দাও। সেই মতো ছেলেকে দুই বোতল জল দিই। জল নিয়ে সে আমাদের ছোট্ট মুদি দোকান চলে যায়। এরপর বেলা গড়িয়ে বিকেল হলেও ছেলে বাড়িতে না ফেরায় চিন্তিত হয়ে পড়ি। বিকালে ছেলের খোঁজে বিভিন্ন জায়গায় খোঁজ করেও না পেয়ে অবশেষে বন্ধ দোকানে উঁকি দিলে দেখতে পাই ছেলে গলায় ফাঁস দিয়ে ঝুলছে। প্রতিবেশীদের জানালে তারা দরজা ভেঙে দোকানে ঢুকে ছেলের দেহ উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যায়।’

 

সোমবার হীরা বেওয়া প্রশ্ন তোলেন, আমার ছেলে যদি আত্মহত্যাই করে তাহলে তার দুটো হাত কেন পেছন মোড়া করে বাঁধা থাকবে। আমার ছেলে আত্মহত্যা করেনি। ওর বন্ধুরাই ওই ৮০ টাকার লোভে ওকে মেরে ঝুলিয়ে দিয়েছে। আমি দোষীদের চরম শাস্তি চাই।’ যদিও পুলিশ হীরা বেওয়ার এই অভিযোগ নিলেও এখনও পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করেনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here