kolkata bengali news

নিজস্ব প্রতিবেদক, কাঁথি: গন্তব্যে পৌঁছে দেওয়ার নাম করে এক গৃহবধূ আর তার তিন বছরের শিশুপুত্রকে নিজের বাইকে তুলে নিয়েছিল এক যুবক। তারপর নির্জন রাস্তায় গিয়েই ধারন করেছিল সে নিজের স্বমূর্তি। গৃহবধূর গলায় ক্ষুর ঠেকিয়ে তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করে সে। গৃহবধূ বাধা দিতে এলে তার সঙ্গে থাকা শিশুপুত্রের গলা কেটে দেয় ওই যুবক। তারই মধ্যে মহিলার চিৎকার চেঁচামেচিতে রাস্তা দিয়ে যাওয়া একটি বাইক তা দেখে ফেলে। ওই বাইকারোহিই খবর দেন স্থানীয় বাসিন্দাদের। তারা চলে আসলে ওই যুবক তার বাইকটি ফেলে পালিয়ে যায়। যাওয়ার আগে ওই মহিলার গলাতেও ক্ষুর দিয়ে আঘাত করে পালায় সে। এরপর স্থানীয়রা ওই মহিলা ও তার শিশুপুত্রকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসলে সেখানে শিশুটিকে মৃত বলে ঘোষণা করা হয়। রোমহর্ষক ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার রাত্রি সাড়ে ৮টা নাগাদ পূর্ব মেদিনীপুরের কাঁথি থানার শৌলাগামী রাস্তায়। ঘটনার জেরে যেমন তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে তেমনি কি কারনে এই ঘটনা ঘটেছে তা নিয়েও চরম ধোঁয়াশায় রয়েছে পুলিশ।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, কাঁথি-শৌলা নির্জন রাস্তায় তারা ওই মহিলার চিৎকার শুনে ছুটে আসেন। তারা এসে দেখেন এক ব্যক্তি বাইক ফেলে পালাচ্ছে। রক্তাক্ত ও অর্ধনগ্ন অবস্থায় অবস্থায় ওই মহিলা কোনওক্রমে জানান তার শিশুটিকে খালে ফেলে দিয়েছে ওই দুষ্কৃতী। এরপরেই স্থানীয়রা শিশুটিকে খাল থেকে উদ্ধার করে। তবে ততক্ষণে তার মৃত্যু হয়েছে বলে স্থানীয়দের দাবী। ওই মহিলা জানিয়েছেন, তিনি কাঁথিতে এক আত্মীয়ের বাড়ি যাবেন বলে ছেলেকে নিয়ে বেরিয়েছিলেন। সেই সময় প্রতিবেশী ওই যুবক তাকে কাঁথি পৌঁছে দেওয়ার নাম করে তাকে বাইকে তুলে নেয়। কাঁথি পেরিয়ে শৌলার রাস্তায় নির্জনে নিয়ে গিয়ে সে বাইক থামায়। এরপর মহিলাকে বাইক থেকে নামিয়ে তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করে। মহিলা বাধা দিতে এলে সে সঙ্গের শিশুপুত্রের গলায় ক্ষুর ঠেকিয়ে ভয় দেখায় যে তাকে বাধা দিতে এলে সে ওই শিশুপুত্রকে খুন করে দেবে। এরপরেও ওই মহিলা বাধা দিলে তাকেই ক্ষুর দিয়ে আঘাত করে ওই যুবক। আহত মহিলাকে সে জোর করে বিবস্ত্র করে ধর্ষণের জন্য। কিন্তু ওই মহিলা চিৎকার শুরু করলে রাস্তা তা শুনতে পান রাস্তা দিয়ে যাওয়া এক বাইকারোহী। তিনিই দ্রুত খবর দেন স্থানীয় বাসিন্দাদের। এলাকার লোকেরা ঘটনাস্থলে ছুটে এলে ওই যুবক সঙ্গের শিশুটিকে ধারালো অস্ত্রের কোপ দিয়ে তাকে খালে ফেলে দেয়। তারপরেই ওই মহিলার গলাতেও ক্ষুর চালায় সে। ওই মহিলা নিজের ছেলেকে বাঁচানোর অনেক চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন।

এলাকাবাসীরা অর্ধনগ্ন অবস্থায় ওই মহিলাকে আশংকাজনক অবস্থায় কাঁথি মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে আসে। সঙ্গে আনা হয় ওই শিশুটিকেও। তবে শিশুটিকে চিকিৎসকরা মৃত বলে সেখানে ঘোষণা করেন। প্রাথমিক ভাবে জানা গিয়েছে, ওই মহিলার নাম শিবানী মাইতি(৩৫)। তার শিশুপুত্রের নাম সৌম্য মাইতি। তাদের বাড়ি কাঁথির বিলাসপুর এলাকায়। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here