নিজস্ব প্রতিবেদক, বারুইপুর: প্রতি মাসে তো বটেই প্রতি সপ্তাহ বললেও ভুল বলা হবে না। ঘনিষ্ঠ মুহুর্তের ছবি তুলে বা ভিডিও তুলে সেই ছবি বা ভিডিও স্যোশাল মিডিয়ায় ফাঁস করিয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে নাবালিকা থেকে শুরু করে তরুণী মায় গৃহবধূকে ব্ল্যাকমেল করার ঘটনা এখন আখছার ভেসে ওঠে চারপাশে। সেই সব ব্ল্যাকমেলের জেরে কখনও ওই মেয়েরা বাধ্য হয় প্রতারকের হাতে নিজেকে তুলে দিতে, যার পরিণাম নতুন করে একবার বা একাধিকবার ধর্ষন না গণধর্ষনের শিকার হওয়া। নতুবা প্রতারিত হয়ে অনেকেই বেছে নেন আত্মহননের পথ। খুব কম ক্ষেত্রেই দেখা যায় প্রতারিতরা পুলিশের দ্বারস্থ হচ্ছেন প্রতারককে শাস্তি দিতে। ফের সেই একই ঘটনা ঘটল। ঘনিষ্ঠ মুহুর্তের ভিডিও স্যোশাল মিডিয়ায় ছেড়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে শুরু হয়েছিল লাগাতার ব্ল্যাকমেল। আর তার জেরেই ফের অকালেই খসে গেল আর একটা জীবন। আবারও আত্মহত্যা। তবে এবারে শিকার এক যুবক, শিকারী এক তরুণী। যা বর্তমান যুগে কার্যত বিরল।

ঘটনাস্থল দক্ষিন ২৪ পরগনা জেলার বারুইপুর মহকুমার সোনারপুর এলাকা। ঘনিষ্ঠ মুহূর্তের ভিডিও তুলে দিনের পর দিন প্রেমিকার হাতে ব্ল্যাকমেল হবার মানসিক চাপ সহ্য করতে না পেরে রেল লাইনে ঝাঁপ দিয়ে আত্মঘাতী হল প্রেমিক যুবক। মৃতের নাম সৌরভ ঘোষ (২২)। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রের খবর, সোনারপুরের বাসিন্দা সৌরভ ঘোষের সঙ্গে শহরেরই বুড়িতলার এক তরুণী পূজা দাসের আলাপ হয়েছিল ফেসবুক থেকে। সেই আলাপের জল গড়িয়েছিল বন্ধুত্ব ছাড়িয়ে গভীর সম্পর্কে। প্রায় এক বছর ধরে তাদের সম্পর্কে তারা কয়েক বার শারিরীক সম্পর্কে আবদ্ধ হয় বলে খবর। অভিযোগ, এই ঘনিষ্ঠ মুহূর্তের ভিডিও অতি গোপনে শুট করে অভিযুক্ত পূজা। এই ভিডিও দেখিয়েই পূজা সৌরভকে ব্ল্যাকমেল শুরু করেছিল। তার দাবি ছিল তার ইচ্ছামত টাকা তাকে দিতে হবে। সৌরভের পরিবারের দাবি,’সৌরভ কলেজ স্ট্রীটের এক বইয়ের দোকানে কাজ করত। তাকে ভয় দেখিয়ে প্রচুর টাকা হাতিয়ে নিয়েছে পূজা। এমনকি টাকা না দিলে থানায় গিয়ে ভিডিও দেখিয়ে সৌরভের নামে অভিযোগ করার হুমকি দিত পূজা। বেশ কয়েকবার বাড়ির লোকদের দিয়ে পূজা সৌরভকে হুমকি দেওয়ার পাশাপাশি মারধোরও করিয়েছিল।’

এই সমস্ত মানসিক চাপ ও লোকলজ্জার ভয়ে গত ১৯ তারিখ বৃহস্পতিবার বারাসত হৃদয়পুরে রেল লাইনে ট্রেনের সামনে ঝাপ দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করে সৌরভ। সেখান থেকে তাকে উদ্ধার করে কলকাতার পিয়ারলেস হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে সে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে হার মানে। যদিও মৃত্যুর আগে মোবাইলে তার জবানবন্দি দেন বলে দাবি পরিবারের। এই ঘটনার পাঁচ দিন পর বুধবার সকালে সোনারপুর থানায় পূজা, তার বাবা-মা এবং তার মামা-মামীর বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন সৌরভের বাড়ির লোকেরা। প্রথমে পুলিশ অভিযোগ নিতে অস্বীকার করে বারাসত জিআরপিতে অভিযোগ দায়ের করার জন্য পরামর্শ দেন। অবশ্য পরে পুলিশ অভিযোগ নেয় এবং মামলাও রুজু করে। যদিও পুলিশ সূত্রের খবর, ওই যুবক আত্মহত্যা করেছে না দূর্ঘটনা ঘটেছে তা ময়না তদন্তের রিপোর্ট আসলে জানা যাবে। এই ঘটনাটি ঘটেছে বারাসত জিআরপি র আওতায় সুতারাং আদালতের নির্দেশ নিয়ে মামলা বারাসত জিআরপিকে হস্তান্তর করা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here